অর্থনীতি

গত কয়েক বছর ধরে চামড়ার বাজারে মন্দা থাকায় হতাশ হয়ে পড়েছিলেন মৌসুমি চামড়া ব্যবসায়ীরা। তবে এ বছর চামড়ার দাম ভালো থাকায় মুনাফা করতে পারবেন বলে আশা করছেন তারা।

সোমবার (১৭ জুন) ঈদের দিন বিকেলে রাজধানীর লালবাগের পোস্তায় দেখা গেছে, মৌসুমি ব্যবসায়ীরা চামড়া বিক্রি করতে এসে ফিরছেন হাসিমুখে।

সাইনবোর্ড এলাকা থেকে ট্রাকে করে পোস্তায় চামড়া নিয়ে এসেছেন মৌসুমি ব্যবসায়ী আব্দুল মোমেন মিয়া। ভালো দামে চামড়া বিক্রি করতে পেরে খুশি এই ব্যবসায়ী।

বাংলানিউজকে তিনি বলেন, এ বছর চামড়ার দাম অনেক ভালো। চামড়ার মান ও আকারের ওপর নির্ভর করে প্রতি চামড়ায় ৭০০ থেকে ৯০০ টাকা পর্যন্ত দিচ্ছে। আমি এলাকা থেকে দেড় লাখ টাকায় প্রায় ৩০০ চামড়া নিয়ে এসেছি। আমরা মৌসুমি ব্যবসায়ী, চামড়া কম আনতে পারি। এলাকার বেশির ভাগ চামড়া মানুষ মাদরাসায় দিয়ে দেয়। আমার আনা কিছু চামড়ায় সমস্যা থাকায় সেগুলো কমদামে বিক্রি করেছি। এবাদে প্রায় সবগুলো চামড়াই ভালো দামে বিক্রি করতে পেরেছি।

পোস্তায় এক আড়তের দায়িত্বরত মো. শফিক জানান, ঢাকা ও এর আশপাশের বিভিন্ন এলাকার মাদরাসা থেকে আসছে বেশির ভাগ চামড়া। এবার মৌসুমি ব্যবসায়ীদের সংখ্যা তুলনামূলক কম। পোস্তায় সন্ধ্যা পর্যন্ত চামড়াবাহী ট্রাকের বেশির ভাগই বিভিন্ন এলাকার মসজিদ-মাদরাসার। হাতেগোনা কয়েকজন মৌসুমি ব্যবসায়ী এসেছেন। এবছর চামড়ার বাজার ভালো যাচ্ছে।

গত বছর সরকারিভাবে চামড়ার দাম ছিল প্রতি বর্গফুট ৫০ থেকে ৫৫ টাকা। এবার সরকারিভাবে চামড়ার দাম বাড়ানো হয়েছে। লবণযুক্ত প্রতি বর্গফুট গরুর চামড়ার দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ৫৫ থেকে ৬০ টাকা। বিভিন্ন এলাকা থেকে মৌসুমি ব্যবসায়ী ও মাদরাসা থেকে পোস্তায় চামড়া আনার পর চামড়ার আকার ও অবস্থা দেখে দাম নির্ধারণ করছেন আড়ৎদাররা। ছোট আকার ও কাটাছেঁড়া চামড়া কেনা হচ্ছে ৪০০ থেকে ৫০০ টাকায়। ৬০০ থেকে ৮০০ টাকায় কেনা হচ্ছে মাঝারি আকারের চামড়া। বড় চামড়া কিনতে আড়ৎদাররা ৯০০ টাকা পর্যন্ত গুনছেন। আড়ৎদার ও বিক্রেতাদের ভাষ্যমতে, এই দাম গত কয়েক বছরের তুলনায় বেশি।

অর্থনীতি

ঈদুল আজহাকে কেন্দ্র করে বেশি বেশি রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন প্রবাসী বাংলাদেশিরা। এছাড়া ডলারের দাম বাড়ায় রপ্তানি আয়ও বেশি আসছে। ফলে বৈদেশিক মুদ্রার সঞ্চয় বা রিজার্ভ কিছুটা বেড়েছে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, চলতি জুন মাসের প্রথম ১২ দিনে প্রবাসী বাংলাদেশিরা ব্যাংকের মাধ্যমে দেশে ১৪৬ কোটি (এক দশমিক ৪৬ বিলিয়ন) ডলারের প্রবাসী আয় পাঠিয়েছেন। এর আগে গত মে মাসে ব্যাংকিং চ্যানেলে দেশে রেমিট্যান্স এসেছে ২২৫ কোটি মার্কিন ডলার, যা গত ৪৬ মাসের মধ্যে যা সর্বোচ্চ এবং এ যাবৎকালের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ প্রবাসী আয়। এর আগে এক মাসে সর্বোচ্চ রেমিট্যান্স এসেছিল ২০২০ সালের জুলাই মাসে ২৬০ কোটি ডলার।

বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ ২০২১ সালের আগস্টে সর্বোচ্চ উঠেছিল চার হাজার ৮০০ কোটি ডলার (৪৮ বিলিয়ন)। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সবশেষ তথ্য অনুযায়ী, ১২ জুন পর্যন্ত গ্রস রিজার্ভ ২৪ দশমিক ৫২ বিলিয়ন ডলার। কিন্তু আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) শর্তের বিপিএম-৬ ম্যানুয়াল অনুযায়ী, গ্রস রিজার্ভ ১৯ দশমিক ২১ বিলিয়ন। মাসের শুরুতে অর্থাৎ ৫ জুন গ্রস রিজার্ভ ছিল ২৪ দশমিক ২৩ বিলিয়ন এবং বিপিএম-৬ ছিল ১৮ দশমিক ৬২ বিলিয়ন।

তবে এর বাইরে বাংলাদেশ ব্যাংকের নিট বা প্রকৃত রিজার্ভের আরেকটি হিসাব রয়েছে, যা শুধু আইএমএফকে দেওয়া হয়। এটি প্রকাশ করা হয় না। সেখানে আইএমএফের এসডিআর খাতে থাকা ডলার, ব্যাংকগুলোর বৈদেশিক মুদ্রা ক্লিয়ারিং হিসাবে থাকা বৈদেশিক মুদ্রা এবং আকুর বিল বাদ দিয়ে ব্যবহারযোগ্য রিজার্ভের হিসাব করা হয়।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, সেই হিসাবে দেশের ব্যয়যোগ্য প্রকৃত রিজার্ভ এখন ১৩ বিলিয়ন ডলারের ঘরে। প্রতি মাসে পাঁচ বিলিয়ন ডলার হিসেবে এ রিজার্ভ দিয়ে তিন মাসের আমদানি ব্যয় মেটানোর সক্ষমতা নেই। সাধারণত একটি দেশের ন্যূনতম তিন মাসের আমদানি খরচের সমান রিজার্ভ থাকতে হয়। সেই মানদণ্ডে বাংলাদেশ এখন মন্দ সূচকে রয়েছে। একটি দেশের অর্থনীতির অন্যতম সূচক হলো বৈদেশিক মুদ্রার মজুত বা রিজার্ভ।

অর্থনীতি

ঈদের ছুটিতে উত্তরাঞ্চলের মানুষ এখন ঘরমুখো। এতে ঢাকা-টাঙ্গাইল ও বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে যানবাহনের সংখ্যা বেড়েই চলছে। এর ফলে বঙ্গবন্ধু সেতুতে বেড়েছে টোল আদায়ের হার। গত ২৪ ঘন্টায় সেতুতে টোল আদায় হয়েছে প্রায় ৩ কোটি টাকা।

বৃহস্পতিবার দুপুরে বঙ্গবন্ধু সেতু সাইট অফিসের নির্বাহী প্রকৌশলী আহসানুল কবীর পাভেল এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

বঙ্গবন্ধু সেতু সাইট অফিস সূত্রে জানা যায়, গত মঙ্গলবার রাত ১২টা থেকে বুধবার রাত ১২টা পর্যন্ত বঙ্গবন্ধু সেতু দিয়ে ৩০ হাজার ৮৩৪টি যানবাহন পারাপার হয়েছে। এ থেকে টোল আদায় হয়েছে ২ কোটি ৮৮ লাখ ৭২ হাজার ৯৫০ টাকা। এর মধ্যে টাঙ্গাইলের বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব অংশে ১৫ হাজার ৭২০টি যানবাহন পারাপার হয়। এ থেকে টোল আদায় হয়েছে ১ কোটি ৪০ লাখ ২৬ হাজার ৯৫০ টাকা। সিরাজগঞ্জে সেতুর পশ্চিম অংশে ১৫ হাজার ১১৪ টি যানবাহন থেকে টোল আদায় হয়েছে ১ কোটি ৪২ লাখ ৪৬ হাজার টাকা।

বঙ্গবন্ধু সেতু সাইট অফিসের নির্বাহী প্রকৌশলী জানান, ঈদকে সামনে রেখে যানবাহনের পারাপার সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। সেতু পারাপারে যাতে কোনো বিঘ্ন না ঘটে সে লক্ষ্যে সব প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। যানজট নিরসনে সেতুর উভয় অংশে ৯টি করে ১৮টি টোল বুথ স্থাপনসহ মোটরসাইকেলের জন্য চারটি বুথ স্থাপন করা হয়েছে। এবারো ঘরমুখো মানুষের ঈদযাত্রা স্বস্তিদায়ক হবে বলে আশা করছি।

অর্থনীতি

চলতি ২০২৩-২৪ অর্থবছরের জন্য ৩৭ হাজার ৮১৭ কোটি ৪০ লাখ ৫৭ হাজার টাকার সম্পূরক বাজেট জাতীয় সংসদে পাস হয়েছে। সোমবার (১০ জুন) সংসদ অধিবেশনে ‘নির্দিষ্টকরণ (সম্পূরক) বিল-২০২৪’ পাসের প্রস্তাব উত্থাপন করেন অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী।

পরে বিলটি কণ্ঠভোটে পাস হয়। বিল পাসের প্রক্রিয়ায় অংশ নিয়ে বিরোধী দল জাতীয় পার্টি ও স্বতন্ত্র সদস্যরা আর্থিক খাতে বিভিন্ন অনিয়ম ও বিশৃঙ্খলা নিয়ে সমালোচনার পাশাপাশি পাচার অর্থ ফিরিয়ে আনার এবং পাচারকারীদের চিহ্নিত করার দাবি জানান।

আগামী ৩০ জুন শেষ হতে যাওয়া অর্থবছরের কার্যক্রম নির্বাহের জন্য সংযুক্ত তহবিল থেকে মঞ্জুরিকৃত অর্থের বেশি বরাদ্দ ও নির্দিষ্টকরণের কর্তৃত্ব দেওয়ার জন্য এ সম্পূরক বিল আনা হয়।

চলতি অর্থবছরের মূল বাজেটে ৬২টি মন্ত্রণালয় ও বিভাগের অনুকূলে সাত লাখ ৬১ হাজার ৭৮৫ কোটি টাকা বরাদ্দ ছিল। সংশোধিত বাজেটে ২২টি মন্ত্রণালয় ও বিভাগের বরাদ্দ বেড়েছে ৩৭ হাজার ৮১৭ কোটি টাকা। ৪০টি মন্ত্রণালয় ও বিভাগের বাজেট অপরিবর্তিত রয়েছে বা কমেছে।

সার্বিকভাবে ৪৭ হাজার ৩৬৭ কোটি টাকা কমে সংশোধিত বাজেট হয়েছে সাত লাখ ১৪ হাজার ৪১৮ কোটি টাকা। সম্পূরক বাজেটে সর্বোচ্চ ১২ হাজার ৬৪৯ কোটি ৩৩ লাখ ৬৮ হাজার টাকা পেয়েছে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়।

সম্পূরক বাজেটে ২০টি দাবির বিপরীতে ৬৬টি ছাঁটাই প্রস্তাব দেন চার জন সংসদ সদস্য। এর মধ্যে দুটি মঞ্জুরি দাবির ওপর ছাঁটাই প্রস্তাবের আলোচনা হয় – অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ। বাকি প্রস্তাবগুলো আলোচনা ছাড়াই ভোটে দেন স্পিকার।

এর আগে সম্পূরক বাজেটের ওপর সরকারি ও বিরোধী দলের সদস্যরা আলোচনা করেন। তাদের বক্তব্যের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, অনিয়মের যেসব কথা বলা হয়েছে সেগুলো অনেকটা ঢালাও অভিযোগ। তবে তারা সর্বোচ্চ চেষ্টা করে যাচ্ছেন। পরে কণ্ঠভোটে ছাঁটাই প্রস্তাবগুলো নাকচ হয়।

এর আগে আলোচনায় অংশ নিয়ে জাতীয় পার্টির মুজিবুল হক চুন্নু বলেন, দুই হাজার ২০০ কোটি টাকা সুদ মওকুফ করা হয়েছে অথচ ৫০ হাজার টাকার জন্য কৃষককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আর্থিক খাতে নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করতে না পারলে এখানে টাকা খরচ করা কেন। চুপ থাকাই ভালো।

তিনি বলেন, আর্থিক বিভাগের বিভাগের অনিয়মের প্রতিবাদ হিসেবে তিনি ছাঁটাই প্রস্তাব দিয়েছেন। তিনি আরও বলেন, আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের বড় কাজ ব্যাংকিং খাতকে সুপারভাইজ করা। কিন্তু জনগণের টাকা লুটপাট হচ্ছে, ব্যাংকে অনিয়ম হচ্ছে। আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ বা বাংলাদেশ ব্যাংক কি সুপারভাইজ করছে? পি কে হালদার কয়েক হাজার কোটি নিয়ে চলে গেছেন, বিভিন্ন সময় বড় বড় প্রতিষ্ঠান ঋণ নেয়; পরে তাদের সুদ মওকুফ করা হয়, এসবের জবাব কি অর্থমন্ত্রী দিতে পারবেন।

জাতীয় পার্টির এ সদস্য বলেন, ডলার সংকটের বড় কারণ পাচার। আগের অর্থমন্ত্রী এ বিষয়ে কিছুই শুনতে চাইতেন না। আর্থিক খাতে অনিয়ম বন্ধের দাবি জানিয়ে তিনি বলেন, ব্যবসায়ী, রাজনীতিবিদ, আমলা যিনিই হোন, যারা বিদেশে টাকা পাচার করেছেন, কানাডা, ইউরোপ আমেরিকায় বাড়ি, হোটেল করেছেন, তদন্ত করে তাদের চিহ্নিত করা হোক। টাকা ফেরত আনতে না পারলেও তাদের চিহ্নিত করার দাবি জানান তিনি।

স্বতন্ত্র সদস্য পঙ্কজ নাথ বলেন, দেশ থেকে টাকা পাচার হচ্ছে। এ বিষয়ে কঠোর হতে হবে। ইচ্ছাকৃত খেলাপিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে। এলসি খোলার ক্ষেত্রে যে সংযত নীতি পরিহার করে আরও উদার হওয়া দরকার। ব্যাংক খাতে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনা জরুরি ।

আরেক স্বতন্ত্র সদস্য হামিদুল হক খন্দকার বলেন, আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ কেন অতিরিক্ত মঞ্জুরি দাবি করেছে, তার সুস্পষ্ট ব্যাখ্যা নেই। অতীতে আরাফাত রহমান কোকোর পাচার করা টাকা ফিরিয়ে আনা সম্ভব হয়েছে। দেশে লুটপাট করে যারা অর্থ পাচার করেছেন, তাদের সে অর্থ ফিরিয়ে আনতে হবে।

আইসিটি বিভাগের লার্নিং অ্যান্ড আর্নিং প্রকল্পগুলো সঠিকভাবে চলছে কি না, সেই খবর নেওয়ার দাবি জানিয়ে বিরোধী দলীয় চিফ হুইপ মুজিবুল হক চুন্নু বলেন, এ প্রকল্পে যারা শিখতে আসে, তারা সঠিকভাবে আত্মস্থ করতে পারে না। এখানে অপব্যয় হচ্ছে।

যশোরে শেখ হাসিনা আইসিটি পার্কের অনিয়মের বিষয়ে গণমাধ্যমের প্রতিবেদন তুলে ধরে তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নামে আইসিটি পার্ক করেছেন, সেখানে হোটেল ম্যানেজমেন্ট, বিয়ের অনুষ্ঠান, সামাজিক অনুষ্ঠান কী করে হয়?

স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য পংকজ নাথ বলেন, আইসিটি খাতে কাজ যে হচ্ছে না, তা ঠিক নয়। তবে, দোয়েলের বাক্স খুললে যদি চীনা কম্পিউটার পাওয়া যায় তাহলে- এটা কি অপচয় নয়, দুর্নীতি নয়? এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থাটা কী নিয়েছেন, তা সংসদ জানতে চায়। দোয়েলের বাক্স খোলার পরে দেখা গেল চায়নিজ পচা মাল। এরপর বন্ধ করে দেওয়া হলো।

তিনি বলেন, শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাবের নামে যে কম্পিউটার দিয়েছেন, তাতে কি আদৌ কাজ হচ্ছে নাকি জং ধরে গেছে। ডাক বিভাগের আধুনিকায়নের নামে দুর্নীতির প্রমাণ মিলেছে। ডাক বিভাগের জমির অবস্থা কী, জানতে চান তিনি।

অর্থনীতি

অর্থনীতির কঠিন সময়ে দৃঢ় উদ্যোগের বাজেট উপস্থাপন করেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী। উত্থাপিত বাজেটের লক্ষ্য বৈশ্বিক ও অভ্যন্তরীণ উত্তাল বৈতরণী সামাল দেওয়া।

মূল্যস্ফীতির লাগাম টানা, বৈদেশিক মুদ্রার বিনিময় হার নিয়ন্ত্রণে আনা ও ব্যাংকিং খাতের অস্থিরতা সামাল দেওয়ার মতো কঠোর পরিস্থিতি মোকাবিলার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে এ বাজেটে।

বৃহস্পতিবার (৬ জুন) বিকেলে জাতীয় সংসদে নতুন ২০২৪-২৫ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট উত্থাপন করেন অর্থমন্ত্রী। এটি মাহমুদ আলীর প্রথম বাজেট। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকারের টানা চতুর্থ মেয়াদের প্রথম বাজেট।

প্রস্তাবিত বাজেটের আকার ধরা হয়েছে সাত লাখ ৯৭ হাজার কোটি টাকা। বাজেটে রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে পাঁচ লাখ ৪১ হাজার কোটি টাকা। বাকি দুই লাখ ৫৬ হাজার কোটি টাকা আসবে ঋণ থেকে।

প্রস্তাবিত বাজেটে ৬ দশমিক ৫ শতাংশের মধ্যে মূল্যস্ফীতি ধরা রাখার লক্ষ্য ঠিক করা হয়েছ। মোট জিডিপির প্রবৃদ্ধি ধরা হয়েছে ৬ দশমিক ৭৫ শতাংশ।

২০২৬ সালে এলডিসি-উত্তরণ, ২০৩১ সালে উচ্চ মধ্যম আয়ের মর্যাদা এবং ২০৪১ সালে একটি উন্নত দেশে রূপান্তরিত হওয়ার মতো লক্ষ্যমাত্রাকে সামনে রেখে আগামী পাঁচ বছরের অর্থনৈতিক পথনকশা হিসেবে প্রণীত এ বাজেট বাস্তবায়ন বেশ চ্যালেঞ্জিং হবে অর্থমন্ত্রীর জন্য।

মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ
বাজেটে মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে বেশ কিছু নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যে করছাড় সুবিধা দিতে হচ্ছে। নিম্ন আয়ের মানুষকে স্বস্তি দিতে সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির আওতায় উপকারভোগীর সংখ্যা বাড়ানো হয়েছে। আবার রাজস্ব আদায়ের বড় প্রাক্কলন বাস্তবায়ন করতে হবে। এসব চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করে বাজেট বাস্তবায়ন কঠিন, খোদ অর্থমন্ত্রীই উল্লেখ করেছেন তার বক্তৃতায়।

জিডিপি
প্রস্তাবিত বাজেটে মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) প্রবৃদ্ধি ধরা হয়েছে ৬ দশমিক ৭৫ শতাংশ। বিদায়ী অর্থবছরে যা ছিল ৭ দশমিক ৫ শতাংশ। পরে তা কমিয়ে সাড়ে ৬ শতাংশ করা হয়।

রাজস্ব
প্রস্তাবিত ২০২৪-২৫ অর্থবছরে মোট রাজস্ব প্রাপ্তি ধরা হয়েছে পাঁচ লাখ ৪১ হাজার কোটি টাকা। যা চলতি বছরের চেয়ে ৮ শতাংশ বেশি। রাজস্ব আহরণে বরাবরের মতো এবারও বেশিরভাগ আয় করার দায়িত্ব থাকবে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) ওপর। আগামী অর্থবছরে এনবিআরকে রাজস্ব আয়ের লক্ষ্য দেওয়া হয়েছে চার লাখ ৮০ হাজার কোটি টাকা। চলতি অর্থবছরের চেয়ে যা ৫০ হাজার কোটি টাকা বেশি। নন-এনবিআর খাত থেকে রাজস্ব আসবে আরও ১৫ হাজার কোটি টাকা। আর কর ব্যতীত প্রাপ্তির লক্ষ্য ধরা হয়েছে ৪৬ হাজার কোটি টাকা।

রাজস্ব আদায়ে বিদায়ী অর্থবছরের প্রথম ১০ মাসে যা আদায় হয়েছে, তাতে এনবিআর লক্ষ্য পূরণ থেকে অনেকটাই দূরে আছে। এর সঙ্গে প্রস্তাবিত বাজেটে আরও ৫০ হাজার কোটি টাকা বাড়নো হয়েছে। ফলে আগামী বাজেটের লক্ষ্য পূরণ রাজস্ব বোর্ডের জন্য অনেকটাই কঠিন হবে।

বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি (এডিপি)
প্রস্তাবিত বাজেটে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) আকার ধরা হয়েছে দুই লাখ ৬৫ হাজার কোটি টাকা। বিদায়ী অর্থবছরে যা ছিল দুই লাখ ৬৩ হাজার কোটি টাকা। সংশোধিত বাজেটে ১৮ হাজার কোটি টাকা কমিয়ে এডিপির আকার করা হয়েছে দুই লাখ ৪৫ হাজার কোটি টাকা। সংশোধিত বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (আরএডিপি) তুলনায় নতুন বাজেটে এডিপির আকার ২০ হাজার কোটি টাকা বেশি। এর মধ্যে সরকারি তহবিল থেকে এক লাখ ৬৫ হাজার কোটি এবং বৈদেশিক ঋণ থেকে এক লাখ কোটি টাকার সংস্থান ধরা হয়েছে।

বাজেট ঘাটতি
বাজেটে ঘাটতি ধরা হয়েছে দুই লাখ ৫৬ হাজার কোটি টাকা। যা জিডিপির ৪ দশমিক ৬ শতাংশ। এই বিশাল ঘাটতি পূরণে অভ্যন্তরীণ ও বৈদেশিক উৎসের ওপর নির্ভর করতে হবে। অভ্যন্তরীণ উৎস থেকে নেওয়া হবে এক লাখ ৬০ হাজার ৯০০ কোটি। এর মধ্যে প্রধান উৎস হচ্ছে ব্যাংক খাত। এই খাত থেকে মোট এক লাখ ৩৭ হাজার ৫০০ কোটি টাকা ঋণ নেওয়ার লক্ষ্য ধরা হয়েছে। আর ৯৫ হাজার ১০০ টাকা বৈদেশিক উৎস থেকে পাওয়ার আশা করছে সরকার। বিদায়ী অর্থবছরের সংশোধিত বাজেটে ঘাটতি ছিল দুই লাখ ৮৩ হাজার ৭৮৫ কোটি টাকা।

নতুন বাজেটে সামষ্টিক অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা পুনরুদ্ধার করা, বৈদেশিক মুদ্রার হার ও রিজার্ভ স্থিতিশীল করা, আমদানিজনিত মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ করা, রাজস্ব আহরণ লক্ষ্যমাত্রা অর্জন এবং জ্বালানি ও সারের ভর্তুকি বকেয়া পরিশোধ করার কথা বলা হয়েছে।

অর্থমন্ত্রীর সামনে অন্যান্য চ্যালেঞ্জের মধ্যে রয়েছে, বিগত তিন বছরের কৃচ্ছ্রসাধন নীতি থেকে ধীরে ধীরে বের হওয়া, সময়মতো সমাপ্তির উদ্দেশ্যে অগ্রাধিকারমূলক প্রকল্পগুলোয় অর্থায়নের জন্য কম-প্রয়োজনীয় প্রকল্পগুলো বাদ দেওয়া, স্বাস্থ্য ও শিক্ষা খাতে বিদেশি অনুদানপ্রাপ্ত প্রকল্পগুলো ত্বরান্বিত করা এবং কাঠামোগত সংস্কার অব্যাহত রাখার পাশাপাশি দেশীয় ও বিদেশি বিনিয়োগ বাড়াতে ব্যবসা-বান্ধব পরিবেশের উন্নতি ঘটানো।

অর্থনীতি

অর্থনৈতিক মন্দা ও তীব্র ডলার সংকটের মধ্যেও দেশ থেকে বৈদেশিক মুদ্রায় বিদেশে পুঁজি নেওয়ার প্রবণতা বেড়েছে দেশীয় উদ্যোক্তাদের। ২০২২ সালে বাংলাদেশ থেকে পুঁজি নেওয়া হয়েছিল ৬ কোটি ৪৭ লাখ ডলার বা স্থানীয় মুদ্রায় ৬৮৫ কোটি ৮২ লাখ টাকা। গত বছর নেওয়া হয়েছে ৭ কোটি ৩২ লাখ ডলার বা স্থানীয় মুদ্রায় ৮৬৩ কোটি ৭৬ লাখ টাকা। ওই সময়ে বিদেশে পুঁজি নেওয়ার পরিমাণ বেড়েছে ৮৫ লাখ ডলার বা ১০০ কোটি ৩০ লাখ টাকা। এ প্রবণতা ডলারের হিসাবে বেড়েছে ১৩ দশমিক ১০ শতাংশ। টাকার হিসাবে পরিমাণে ১৪ দশমিক ৬৩ শতাংশ। বাংলাদেশ ব্যাংকের সম্প্রতি প্রকাশিত প্রতিবেদন বিশ্লেষণ করে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

সূত্র জানায়, বাংলাদেশ ব্যাংকের অনুমোদন নিয়ে যেসব উদ্যোক্তা বৈধভাবে বিদেশে পুঁজি নিয়েছে এ হিসাব তার ভিত্তিতে করা হয়েছে। এর বাইরে দেশ থেকে অর্থ পাচার বা বেআইনিভাবে আরও কয়েকশ গুণ বেশি পুঁজি বিদেশে নেওয়া হয়েছে। যা দিয়ে বিদেশে ব্যবসা-বাণিজ্য করা হচ্ছে। এর মধ্যে বিসমিল্লাহ গ্র“প দেশ থেকে ১২০০ কোটি টাকা সংযুক্ত আরব আমিরাতে পাচার করেছে। ওই টাকায় দেশটিতে তারা পাঁচতারা হোটেল ব্যবসা করছেন বলে জানা গেছে। এ রকম আরও অনেক উদ্যোক্তা দেশ থেকে ব্যাংকের টাকা আÍসাৎ করে বিদেশে পাচার করে সেগুলো দিয়ে ব্যবসা করছেন।

দেশ থেকে বিদেশে পুঁজি নিয়ে বিনিয়োগের যে নীতিমালা করা হয়েছে তাতে শুধু রপ্তানিকারকরাই পুঁজি বিনিয়োগ করতে পারেন। সে ক্ষেত্রে রপ্তানিকারকের হিসাবে ডলারের পর্যাপ্ত প্রবাহ থাকতে হবে। এছাড়া কেন্দ্রীয় ব্যাংকের অনুমোদন নিয়ে বিশেষ কিছু আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিদেশে পুঁজি নিয়ে ব্যাংক বা এক্সচেঞ্জ হাউস খুলতে পারে।

প্রতিবেদনে দেখা যায়, দেশ থেকে বিদেশ পুঁজি নেওয়ার পাশাপাশি কিছু মুনাফা দেশে আসতে শুরু করেছে। এর মধ্যে আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোই মুনাফা নিয়ে আসছে।

২০২০ সালে বাংলাদেশ থেকে বিদেশে পুঁজি নেওয়া হয়েছিল ৩ কোটি ১১ লাখ ডলার। ২০২১ সালে তা তিনগুণ বেড়ে দাঁড়ায় ৯ কোটি ৪৭ লাখ ডলার। ২০২২ সালে পুঁজি নেওয়ার পরিমাণ কিছুটা কমে। ওই বছরে নেওয়া হয়েছিল ৬ কোটি ৪৭ লাখ ডলার। গত বছর নেওয়া হয়েছে ৭ কোটি ৩২ লাখ ডলার। গত এক বছরের ব্যবধানে দেশ থেকে বিদেশে পুঁজি নেওয়ার প্রবণতা বেড়েছে ১৩ দশমিক ১০ শতাংশ।

বিদেশে বিনিয়োগকৃত পুঁজি থেকে অর্জিত মুনাফা দেশে আনার প্রবণতাও কিছুটা বেড়েছে। ২০২২ সালে মুনাফা আনা হয়েছিল ১ কোটি ২১ লাখ ডলার। ২০২৩ সালে আনা হয়েছে ৪ কোটি ৩৩ লাখ ডলার। এক বছরের ব্যবধানে মুনাফা আনার প্রবণতা বেড়েছে ২৫৬ দশমিক ৮ শতাংশ। ফলে বিদেশে বাংলাদেশি উদ্যোক্তাদের পুঁজির স্থিতি কিছুটা কমেছে। ২০২২ সালে স্থিতি ছিল ৪০ কোটি ডলার বা ৪২৪০ কোটি টাকা। ২০২৩ সালে তা কমে দাঁড়ায় ৩৮ কোটি ডলার বা ৪৪৮৪ কোটি টাকা। ওই সময়ে স্থিতি কমেছে ৩ দশমিক ৮ শতাংশ। তবে ডলারের বিপরীতে টাকার অবমূল্যায়ন হওয়ায় টাকার হিসাবে পুঁজির স্থিতি কমেনি বরং বেড়েছে।

এদিকে নগদ পুঁজি নেওয়ার প্রবণতা গত এক বছরে কিছুটা কমেছে। ২০২২ সালে পুঁজি হিসাবে নেওয়া হয়েছে ১ কোটি ১৭ লাখ ৪০ হাজার ডলার। ২০২৩ সালে নেওয়া হয়েরেছ ১ কোটি ৭ লাখ ডলার। ওই সময়ে কমেছে ৯ দশমিক ২ শতাংশ। এর আগে ২০২০ সালে নেওয়া হয়েছিল ৯১ লাখ ৯০ হাজার ডলার, ২০২১ সালে ৫৭ লাখ ৮০ হাজার ডলার।

দেশ থেকে নেওয়া পুঁজিতে ব্যবসা পরিচালনা করে অর্জিত মুনাফা ফের বিনিয়োগ করতে শুরু করেছে দেশীয় কোম্পানিগুলো। ২০২২ সালে বিদেশে পরিচালিত ব্যবসা থেকে অর্জিত মুনাফা পুনঃবিনিয়োগ হয়েছে ৩ কোটি ৪৮ লাখ ডলার। ২০২৩ সালে এ খাতে বিনিয়োগ করা হয়েছে ৪ কোটি ৩০ লাখ ডলার। ওই সময়ে মুনাফা বিনিয়োগ বেড়েছে ২৩ দশমিক ৬ শতাংশ।

বিদেশে এক কোম্পানি থেকে অন্য কোম্পানি ঋণ নিয়ে বিনিয়োগ করতে পারে। ২০২২ সালে ঋণ নিয়ে বিনিয়োগ করা হয় ৬১ লাখ ডলার। ২০২৩ সালে এ খাতে নতুন বিনিয়োগ হয়নি। বরং আগের বকেয়া ঋণ থেকে পরিশোধ করা হয়েছে ২ কোটি ৩৭ লাখ ৪০ হাজার ডলার। এ খাতে বিনিয়োগ কমেছে ৪৯১ দশমিক ৭ শতাংশ।

বিদেশে পুঁজি নেওয়া ও ফিরিয়ে আনা এ দুটির পার্থক্য হচ্ছে নিট বিনিয়োগ। ২০২২ সালে নিট বিনিয়োগ ছিল ৫ কোটি ২৬ লাখ ডলার। ২০২৩ সালে তা কমে দাড়ায় ২ কোটি ৯৯ লাখ ডলার। আলোচ্য সময়ে নিট বিনিয়োগ কমেছে ৪৩ দশমিক ২ শতাংশ।

বিদেশে বাংলাদেশি উদ্যোক্তাদের বিনিয়োগের স্থিতি টানা চার বছর বাড়ার পর গত বছরে কমেছে। ২০১৮ সালে স্থিতি ছিল ৩১ কোটি ৫ লাখ ডলার। যা আগের বছরের চেয়ে ৬ দশমিক ২ শতাংশ কমেছিল। ২০১৯ সালে স্থিতি ছিল ৩২ কোটি ৩৬ লাখ ৩০ হাজার ডলার। যা আগের বছরের চেয়ে ৪ দশমিক ২ শতাংশ বেশি। ২০২০ সালে স্থিতি ছিল ৩২ কোটি ৭১ লাখ ৪০ হাজার ডলার। যা আগের বছরের চেয়ে ১ দশমিক ১ শতাংশ বেশি। ২০২১ সালে স্তিতি আরও বেড়ে ৩৮ কোটি ৯৮ লাখ ডলার হয়। যা আগের বছরের চেয়ে ১৯ দশমিক ২ শতাংশ বেশি। ওই বছরেরই স্থিতি সবচেয়ে বেশি বেড়েছে। ২০২২ সালে স্থিতি আরও বেড়ে ৪০ কোটি ডলারে দাড়ায়। যা আগের বছরের চেয়ে ২ দশমিক ৬ শতাংশ বেশি। ২০২৩ সালে স্থিতি আরার সামান্য কমে দাড়ায় ৩৮ কোটি ৪৮ লাখ ৪০ হাজার ডলার। যা আগের বছরের চেয়ে ৩ দশমিক ৮ শতাংশ কম। অর্থাৎ বিনিয়োগের স্থিতি ২-১৮ সালের পর এই প্রথম কমেছে।

প্রতিবেদন থেকে পাওয়া তথ্যে দেখা যায়, ২০২৩ সালে বাংলাদেশ থেকে সবচেয়ে বেশী বিনিয়োগ গেছে হংকংয়ে ২ কোটি ২৩ লাখ ডলার। ওই দেশ থেকে মুনাফাসহ ফিরে এসেছে ২ কোটি ৮১ লাখ ডলার। বিনিয়োগের চেয়ে মুনাফা বেশি এসেছে। ভারতে গেছে ২ কোটি ১১ লাখ ডলার বিনিয়োগ, দেশটি থেকে গত বছর আসেনি কোনো মুনাফা। সংযুক্ত আরব আমিরাতে গেছে ৮৯ লাখ ১০ হাজার ডলার। কোন মুনাফা আসেনি। যুক্তরাজ্যে গেছে ৮৮ লাখ ডলার। মুনাফাসহ ফিরেছে ১ কোটি ৩১ লাখ ২০ হাজার ডলার। নেপালে গেছে ৪২ লাখ ৩০ হাজার ডলার। মুনাফা এসেছে ৭ লাখ ১০ হাজার ডলার। শীর্ষ ৫ দেশে মোট বিনিয়োগ ৬ কোটি ৫৩ লাখ ডলার। মুনাফা এসেছে ৪ কোটি ১৯ লাখ ডলার।্ অন্যান্য দেশে গেছে ৭৯ লাখ ১০ হাজার ডলার। মুনাফা এসেছে ১৪ লাখ ডলার।

২০২৩ সালে আর্থিক প্রতিষ্ঠানের ব্যবসায় বিদেশে সবচেয়ে বেশি পুঁজি গেছে ৬ কোটি ২৯ লাখ ডলার। এর মধ্যে দেশে এসেছে ৪ কোটি ৩২ লাখ ডলার। বিনিয়োগের মধ্যে খনিজ খাতে গেছে ৮৯ লাখ ডলার, রাসায়নিক ও ফার্মাসিউটিক্যালস খাতে ৪ লাখ ৪০ হাজার ডলার, ট্রেডিং খাতে ৪ লাখ ২০ হাজার ডলার, ট্রেক্সটাইল খাতে ২ লাখ ৩০ হাজার ডলার, ধাতব ও মেশিনারিজ খাতে ২ লাখ ডলার, অন্যান্য উৎপাদন খাতে ৮০ হাজার ডলার, সেবা খাতে ৭০ হাজার ডলার।

প্রতিবেদনে বলা হয়, বিদেশে বিনিয়োগ নেওয়ার ব্যাপারে বাংলাদেশ খুব সাবধানে এগুচ্ছে। ২০১৫ সালের সেপ্টেম্বরে সরকার ১৯৪৭ সালের আইন সংশোধন করে একটি শর্ত যোগ করে বিদেশে বিনিয়োগ নেওয়ার অনুমোদন দেওয়া হয়। কেবল রপ্তানি আয়ের বিপরীতে পর্যাপ্ত ডলারের প্রবাহ থাকলেই বিদেশে বিনিয়োগ নেওয়া যাবে। বর্তমানে ওই আইনের আওতায় ২২টির বেশি দেশে বাংলাদেশ থেকে বিনিয়োগ গেছে।

এ পর্যন্ত ১৮টি কোম্পানি বাংলাদেশ ব্যাংকের অনুমতি নিয়ে বিদেশে বিনিয়োগ করছে।

অর্থনীতি

আগামী (২০২৪-২৫) অর্থবছরের বাজেটে মূল্যস্ফীতির অভিঘাত থেকে বেরোনোর জন্য সামাজিক সুরক্ষা কার্যক্রম বাড়ানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন অর্থ প্রতিমন্ত্রী ওয়াসিকা আয়শা খান। একইসঙ্গে অর্থনীতিতে জলবায়ু পরিবর্তনের অভিঘাত কী হতে পারে, এবারের বাজেট উপস্থাপনের সময় এ সংক্রান্ত একটি বিশ্লেষণ থাকবে বলেও জানান তিনি।

বৃহস্পতিবার (৩০ মে) দুপুরে সচিবালয়ে নিজ দপ্তরে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এ কথা জানান।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমাদের অর্থনীতিতে জলবায়ু পরিবর্তনের সম্ভাব্য অভিঘাত কী হতে পারে, তা আগের বাজেটগুলোতে ছিল না। এবার বাজেট উপস্থাপনের সময় সেই সংক্রান্ত একটি বিশ্লেষণ দেওয়া হবে। প্রতিবছর যেভাবে জেন্ডার বাজেটের একটি প্রতিবেদন দেওয়া হয়, ৪৪টি মন্ত্রণালয় এ প্রতিবেদন তৈরি করে। এবার প্রথমবার আইবাস থেকে দেখতে পাবে বরাদ্দগুলো সংশ্লিষ্ট খাতে যাচ্ছে কিনা।

পাচার হওয়া অর্থ উদ্ধারে ট্যাক্স সুবিধা দেওয়া হবে। অর্থাৎ আপনি যদি এত টাকা ট্যাক্স দেন, তাহলে পাচার হওয়া অর্থ দেশে ফিরিয়ে আনতে পারবেন। এবার ট্যাক্সের পরিমাণ বাড়ানো হচ্ছে বলে শোনা যাচ্ছে। এ সম্পর্কে জানতে চাইলে প্রতিমন্ত্রী বলেন, এটা তো জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের কাছ থেকে জানতে হবে। রাজস্ব আহরণের বিষয়টি তাদের এখতিয়ার। আমিও শুনেছি, এটিতে গতবারের মতোই এবারও কিছুটা ছাড়ের ব্যবস্থা আছে। তবে রেটটা আমি এখন বলতে পারছি না।

মূল্যস্ফীতি শুরুই তো হলো করোনা মহামারি পরবর্তী রুশ-ইউক্রেন যুদ্ধের সময় জানিয়ে তিনি বলেন, তখন জ্বালানি তেলের দাম বেড়ে গেছে। এরপর থেকে বিশ্বজুড়ে মূল্যস্ফীতি চলমান আছে। অনেক দেশে ষাট শতাংশের বেশি মূল্যস্ফীতি আছে। মানুষকে মূল্যস্ফীতি সংক্রান্ত অভিঘাত থেকে কীভাবে বের করে নিয়ে আসবো, সেজন্য সামাজিক সুরক্ষা কার্যক্রম প্রস্তাবিত বাজেটে বাড়ানো হয়েছে। এবারের বাজেটে মূল্যস্ফীতির বিষয়টি যেমন গুরুত্ব পাচ্ছে, তেমনই সামাজিক সুরক্ষা কার্যক্রমের সম্প্রসারণ হচ্ছে। নিম্ন ও স্বল্প-আয়ের মানুষের মধ্যে বিনামূল্যে খাদ্য বিতরণ অব্যাহত থাকবে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ফ্যামিলি কার্ড থেকে শুরু করে খাদ্যসহায়তা চলমান আছে। এগুলো যাতে ঠিকভাবে করা হয়, সেই ব্যবস্থাও নেওয়া হয়েছে। বাজেট ঘাটতি সহনীয় পর্যায়ে রেখে সামগ্রিক স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে মুদ্রানীতি সফলভাবে বাস্তবায়নে সপোর্টিভ ফিসক্যাল স্ট্যান্ড গ্রহণ করা হয়েছে। বিশ্ব বাজারে জ্বালানিসহ খাদ্যপণ্য ও সারের মূল্য কমে আসার একটা বিষয় আছে। খাদ্য সরবরাহ স্বাভাবিক রাখতে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

আমরা ঋণনির্ভর উন্নয়নের দিকে যাচ্ছি কিনা- জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমরা ঋণ নির্ভর উন্নয়নের দিকে যাচ্ছি না। আমাদের ডেট-জিডিপি রেশিও অনেক কম। বিভিন্ন দেশের তুলনায় আমাদের অনেক কম। আমাদের ঋণ নেওয়ার সক্ষমতা অনেক আছে। আমাদের পেমেন্ট রেকর্ডও ভালো। বাংলাদেশ কখনো কোনো পেমেন্টে ডিফল্ট করেনি। আমি আশা করবো, ঋণনির্ভর উন্নয়ন কথাটি বলা ঠিক না।

অর্থনীতি

অবশেষে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) জিজ্ঞাসাবাদের মুখোমুখি হতে হচ্ছে সাবেক পুলিশপ্রধান (আইজিপি) বেনজীর আহমেদকে। অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে বেনজীর ও তার স্ত্রী-কন্যাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তলব করেছে দুদক।

মঙ্গলবার (২৮ মে) কমিশন সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

দুদক থেকে জানা গেছে, অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ অনুসন্ধানের জন্য বেনজীর আহমেদকে আগামী ৬ জুন তলব করেছে অনুসন্ধানকারী টিম। একই অভিযোগে তার স্ত্রী জীশান মির্জা এবং বড় মেয়ে ফারহিন রিস্তা বিনতে বেনজীর ও ছোট মেয়ে তাহসিন রাইসা বিনতে বেনজীরকে ৯ জুন তলব করা হয়েছে।

এর আগে মঙ্গলবার দুপুরে দুদক তাদের জিজ্ঞাসাবাদের সিদ্ধান্ত নেয়। তারপরেই সংশ্লিষ্ট অনুসন্ধানকারী দলের পক্ষ থেকে এই তলবি নোটিশ পাঠানো হয়।

গত ১৮ এপ্রিল বেনজীর আহমেদের বিরুদ্ধে কোটি কোটি টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ অনুসন্ধানে মাঠে নামে দুদক। ইতোমধ্যে দুদকের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে সম্প্রতি বেনজীর আহমেদ, তার স্ত্রী ও সন্তানদের নামে থাকা দুইশ শতাধিক স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তি ক্রোক ও ফ্রিজের আদেশ দেন আদালত। এছাড়া স্ত্রী-সন্তানসহ বেনজীরের বিও হিসাবও অবরুদ্ধের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

দুদকের তিন সদস্যের অনুসন্ধান টিমে রয়েছেন উপপরিচালক হাফিজুল ইসলাম, সহকারী পরিচালক নিয়ামুল হাসান গাজী ও জয়নাল আবেদীন।

গত ৩১ মার্চ দৈনিক কালের কণ্ঠে ‘ঢাকায় বেনজীরের ঘরে আলাদীনের চেরাগ’ শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশিত হলে নতুন করে আলোচনায় উঠে আসেন পুলিশের সাবেক আইজিপি ও র‌্যাবের সাবেক মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ।

অর্থনীতি

আইএমএফ-এর শর্ত পূরণে আগামী অর্থবছরের (২০২৪-২৫) বাজেটে খাদ্য সহায়তা ভর্তুকি কমছে। অর্থাৎ খোলাবাজারে স্বল্পমূল্যে খাদ্য বিতরণ কর্মসূচির ভর্তুকি চলতি অর্থবছরের চেয়ে প্রায় সাড়ে তিনশ কোটি টাকা কমানো হচ্ছে। অপরদিকে ডলারের মূল্যবৃদ্ধির কারণে খাদ্য আমদানি খাতে সরকারি ব্যয়ে বড় উল্লম্ফন ঘটছে। চাল ও গম আমদানিতে আগামী অর্থবছরে পৌনে ১৩শ কোটি টাকা বেশি গুনতে হবে। সবমিলিয়ে ব্যয় পরিচালন করতে আগামী বাজেটে খাদ্য খাতে সম্ভাব্য বরাদ্দ থাকছে ২২ হাজার ৭৬৪ কোটি টাকা। এটি চলতি বাজেটের চেয়ে প্রায় ৬০০ কোটি টাকা বেশি। সংশ্লিষ্ট সূত্রে পাওয়া গেছে এসব তথ্য।

ওএমএসসহ বিভিন্ন খাদ্য সহায়তা কর্মসূচিতে ভর্তুকি কমিয়ে আনাকে সঠিক সিদ্ধান্ত বলে মনে করছেন না অর্থনীতিবিদরা। তাদের মতে, মূল্যস্ফীতির কশাঘাতে নতুন করে অনেক মানুষ গরিব হয়েছেন। এমন পরিস্থিতিতে খাদ্যে ভর্তুকি বাড়ানো দরকার ছিল। ডব্লিউএফপি (ওয়ার্ল্ড ফুড প্রোগ্রাম বা বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচি) গত মাসে বাংলাদেশের খাদ্যের দাম বেড়ে যাওয়ার প্রভাব নিয়ে একটি গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। সেখানে বলা হয়েছে, ফেব্রুয়ারিতে বাংলাদেশের ১৭ শতাংশ মানুষ খাদ্যঝুঁকিতে ছিল; যা এর আগের মাসের তুলনায় ২ শতাংশ বেড়েছে। দেশের ৬৮ শতাংশ মানুষ জীবনযাত্রার ব্যয় কমিয়ে টিকে থাকার চেষ্টা করছে। আর ৪৩ শতাংশ মানুষ বাকিতে খাবার কিনছে। ২২ শতাংশ মানুষ স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা বাবদ খরচ কমিয়েছে। আর ১৩ শতাংশ মানুষ সঞ্চয় ভাঙছে। খাদ্যঝুঁকিতে থাকা মাত্র ২১ শতাংশ মানুষ বাইরে থেকে সহায়তা পাচ্ছে।

৬ জুন জাতীয় সংসদে ২০২৪-২৫ অর্থবছরের বাজেট ঘোষণা করবেন অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী। এটি তার প্রথম বাজেট। সংকট পরিস্থিতিতে নতুন বাজেটে প্রাধান্য পাচ্ছে মূল্যস্ফীতি। সে হিসাবে খাদ্য সংগ্রহ ও মজুত খাতে বরাদ্দকে বেশি প্রাধান্য দেওয়া হচ্ছে। পাশাপাশি ডলারের মূল্যবৃদ্ধি এবং বিশ্বব্যাপী খাদ্য উৎপাদন কম হওয়ায় বিদেশ থেকে চাল ও গম আমদানিও প্রাধান্য পাচ্ছে।

প্রতিবছর সরকার ওএমএস কর্মসূচির মাধ্যমে স্বল্পমূল্যে চাল গরিব মানুষের কাছে বিক্রির মাধ্যমে ভর্তুকি দিয়ে আসছে। চলতি বাজেটে ভর্তুকি বাবদ বরাদ্দ ছিল ৫ হাজার ৮ কোটি টাকা। পরে সংশোধিত বাজেটে এ খাতে ভর্তুকি দেওয়া হয় ৫ হাজার ৪৯২ কোটি টাকা। মূল্যস্ফীতির হার অস্বাভাবিক বৃদ্ধির কারণে সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি হিসাবে দরিদ্র মানুষের মধ্যে স্বল্পমূল্যে খাদ্য সহায়তা বৃদ্ধি করা হয়। মূল্যস্ফীতি এখন ৯ শতাংশের ওপরে আছে। সরকারের গবেষণা প্রতিষ্ঠান বিআইডিএস-এর হিসাবে খাদ্য মূল্যস্ফীতি এখন ১৫ শতাংশের ওপরে। সে হিসাবে আগামী বাজেটে খাদ্য ভর্তুকির অঙ্ক আরও বৃদ্ধি পাওয়ার কথা। কিন্তু সম্ভাব্য ভর্তুকি বরাদ্দ পর্যালোচনা করে দেখা যায়, চলতি অর্থবছরের খাদ্য ভর্তুকির চেয়ে ৩২২ কোটি টাকা কমিয়ে আগামী বাজেটে ৫ হাজার ১৬৯ কোটি টাকা নির্ধারণ করেছে। মূলত আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল আইএমএফ বাংলাদেশকে ৪৭০ কোটি মার্কিন ডলারের যে ঋণ দিয়েছে, তার অনেক শর্তের মধ্যে একটি হলো ভর্তুকি ব্যয় হ্রাস করা। সে শর্ত পালন করতে গিয়ে সরকার খাদ্য ভর্তুকিতে হাত দিয়েছে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। জানতে চাইলে সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অর্থ উপদেষ্টা ড. মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম বলেন, খাদ্য ভর্তুকি কমানোর সিদ্ধান্ত সঠিক হচ্ছে না। সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির আওতায় ভর্তুকি আরও বাড়ানো দরকার। এ ভর্তুকি গরিব মানুষ পাচ্ছে। মূল্যস্ফীতির কারণে এ শ্রেণির সংখ্যা বেড়ে যাচ্ছে। আমি এ উদ্যোগ সমর্থন করি না।

সূত্রমতে, প্রতিবছর চাল ও গমের চাহিদার একটি অংশ সরকার বিদেশ থেকে আমদানি করে। আগামী অর্থবছরে ১১ থেকে ১২ লাখ মেট্রিক টন চাল ও গম আমদানির লক্ষ্য রয়েছে। এ প্রক্রিয়ার সঙ্গে জড়িত অর্থ বিভাগের ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা জানান, এ সময়ে ডলারের মূল্যবৃদ্ধির বড় প্রভাব পড়েছে খাদ্য আমদানি ব্যয়ে। চলতি বাজেট প্রণয়নের সময় প্রতি ডলারের মূল্য ১১০ টাকা ধরে সব ধরনের ব্যয়ের হিসাব করা হয়। এখন সে ডলারের মূল্য ১১৭ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এতে চলতি অর্থবছরের সংশোধনী এবং আগামী অর্থবছরের বাজেটে খাদ্য খাতে এর নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। ডলারের মূল্য বেড়ে যাওয়ায় আগামী অর্থবছর চাল ও গম আমদানি খাতে ব্যয় পৌনে ১৩শ কোটি টাকা বেড়ে ৫ হাজার ৪৮৭ কোটি টাকায় উঠেছে। এর মধ্যে চাল আমদানিতে ২ হাজার ৬৭৯ কোটি টাকা এবং গমে ২ হাজার ৮০৮ কোটি টাকা।

চলতি অর্থবছরে এ খাতে বরাদ্দ ছিল ৪ হাজার ২১৫ কোটি টাকা। এছাড়া আসন্ন বোরো মৌসুমে ১৭ লাখ ৫০ হাজার টন ধান, চাল ও গম সংগ্রহ করবে সরকার। এর মধ্যে ৩২ টাকা কেজি দরে ৫ লাখ টন ধান, ৪৫ টাকা কেজি দরে ১১ লাখ টন সিদ্ধ চাল, ৪৪ টাকায় আতপ চাল ১ লাখ টন এবং ৩৪ টাকা কেজি দরে ৫০ হাজার টন গম সংগ্রহ করা হবে। আগামী বাজেটে এ খাতে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে ৮ হাজার ৭৪২ কোটি টাকা। এর মধ্যে চাল খাতে ৮ হাজার ৭০৬ কোটি এবং গম কিনতে ব্যয় হবে ৩৬ কোটি টাকা। যদিও বর্তমানে ধান ও চালের মজুত আছে ১২ লাখ ৪৯ হাজার ১৭১ মেট্রিক টন। সংশ্লিষ্টরা আশা করছেন, জুনে সংগ্রহ অভিযান শুরু হলে মজুত আরও বাড়বে।

আগামী বাজেটে অন্যান্য আনুষঙ্গিক, বিশেষ করে চাল বহনে বস্তা ক্রয়, পরিবহণ, খাদ্য খালাসসহ অন্যান্য ব্যয় খাতে ১ হাজার ৩১৩ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে।

অর্থনীতি

হবিগঞ্জে শাহজিবাজার পাওয়ার কোম্পানির রেন্টাল বিদ্যুৎকেন্দ্রের মেয়াদ পাঁচ বছর বাড়ানোসহ বিদ্যুৎ বিভাগের পাঁচটি সৌর বিদ্যুৎ চালিত পাম্পের মাধ্যমে কৃষি সেচ প্রকল্পে অতিরিক্ত ৯৭ কোটি৭২ লাখ ১৯ হাজার ২০৫ টাকা ব্যয় বাড়ানোর অনুমোদন দিয়েছে সরকার।

সোমবার (২৭ মে) সচিবালয়ে অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে এ প্রস্তাবগুলোর অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সমন্বয় ও সংস্কার সচিব মো. মাহমুদুল হোসাইন খান সাংবাদিকদের জানান, মাধবপুর, হবিগঞ্জ ৮৬ মেগাওয়াট গ্যাস ভিত্তিক রেন্টাল বিদ্যুৎকেন্দ্রের বর্ধিত মেয়াদের ট্যারিফ অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা কমিটি। বিদ্যুৎকেন্দ্রের স্পন্সর কোম্পানি শাহজিবাজার পাওয়ার কোম্পানির সঙ্গে সরকারের ১৫ বছর চুক্তির মেয়াদ ২০২৪ সালের ৯ ফেব্রুয়ারি উত্তীর্ণ হয়।

এই বিদ্যুৎকেন্দ্রের মেয়াদ আরও পাঁচ বছর বাড়ানোর সুপারিশ করে বাবিউবো। বাবিউবো এবং নেগোসিয়েশন কমিটি কর্তৃক স্পন্সর কোম্পানির সঙ্গে নেগোসিয়েশনের মাধ্যমে সুপারিশকৃত চুক্তির শর্ত চূড়ান্ত করে গ্যাস ভিত্তিক রেন্টাল বিদ্যুৎকেন্দ্রের মেয়াদ ৫ বছর বৃদ্ধির জন্য স্পন্সর কোম্পানির সঙ্গে ট্যারিফ কিলোওয়াট ঘণ্টা ৭.০৪১২ টাকা হিসেবে নো ইলেক্ট্রিসিটি, নো পেমেন্ট ভিত্তিতে সংশোধিত চুক্তি সম্পাদনের অনুমোদনের জন্য প্রস্তাব উপস্থাপন করা হলে কমিটি তাতে অনুমোদন দিয়েছে।

বর্ধিত মেয়াদে (৫ বছরে) স্পন্সর কোম্পানিকে ১ হাজার ৮৫৬ কোটি ৪০ লাখ টাকা পরিশোধ করতে হবে। বর্ণিত প্রস্তাবে ট্যারিফ আগের তুলনায় হ্রাস পাওয়ায় বর্ধিত মেয়াদে প্রায় ৭১.২০ কোটি টাকা ব্যয় সাশ্রয় হবে।

সচিব জানান, সৌর বিদ্যুৎ চালিত পাম্পের মাধ্যমে কৃষি সেচ (২য় সংশোধিত)’ প্রকল্পের প্যাকেজ নম্বর-এসপিআইপি-ডব্লিউ-১ এর পূর্ত কাজের পরিমাণ বেড়ে যাওয়ায় ১২ কোটি ৭০ লাখ ৫৯ হাজার ৬১৩ টাকা ভেরিয়েশন প্রস্তাবে অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা কমিটি। প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করেছে বেঙ্গল সোলার যৌথ কোম্পানি।

বৈঠকে অনুমোদিত অন্যান্য প্রস্তাবগুলো হলো: ‘সৌর বিদ্যুৎ চালিত পাম্পের মাধ্যমে কৃষি সেচ (দ্বিতীয় সংশোধিত)’ প্যাকেজ নম্বর-এসপিআইপি-ডব্লিউ-২ এর পূর্ত কাজের ১৭ কোটি ৮৯ লাখ ৫৮ হাজার ৪৮৭ টাকার ভেরিয়েশন প্রস্তাবে অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা কমিটি।
‘সৌর বিদ্যুৎ চালিত পাম্পের মাধ্যমে কৃষি সেচ (দ্বিতীয় সংশোধিত)’ প্যাকেজ নম্বর-এসপিআইপি-ডব্লিউ-৩ এর পূর্ত কাজের ১৭ কোটি ৭০ লাখ ৩২ হাজার ২০৭ টাকার ভেরিয়েশন প্রস্তাবে অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা কমিটি।

‘সৌর বিদ্যুৎ চালিত পাম্পের মাধ্যমে কৃষি সেচ (দ্বিতীয় সংশোধিত)’ প্যাকেজ নম্বর-এসপিআইপি-ডব্লিউ-৪ এর পূর্ত কাজের ১৭ কোটি ৩৭ লাখ ৯ হাজার ৪৯১ টাকার ভেরিয়েশন প্রস্তাবে অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

‘সৌর বিদ্যুৎ চালিত পাম্পের মাধ্যমে কৃষি সেচ (দ্বিতীয় সংশোধিত)’ প্যাকেজ নম্বর-এসপিআইপি-ডব্লিউ-৫ এর পূর্ত কাজের ১৭ কোটি ২৮ লাখ ২৯ হাজার ৭৪ টাকার ভেরিয়েশন প্রস্তাবে অনুমোদন দিয়েছে কমিটি।

‘সৌর বিদ্যুৎ চালিত পাম্পের মাধ্যমে কৃষি সেচ (দ্বিতীয় সংশোধিত)’ প্যাকেজ নম্বর-এসপিআইপি-ডব্লিউ-৬ এর পূর্ত কাজের ১৪ কোটি ৭৬ লাখ ৩০ হাজার ৩৩৩ টাকা টাকার ভেরিয়েশন প্রস্তাবে অনুমোদন দিয়েছে কমিটি।
এ প্রকল্পগুলো বাস্তবায়ন করেছে বেঙ্গল সোলার যৌথ কোম্পানি।

ভেরিয়েশনের কারণ হিসেবে, কোভিড-১৯ এবং রাশিয়া ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে দেশীয় এবং বিদেশি বিভিন্ন মালামালের মূল্য বৃদ্ধি, যাতায়াত, পরিবহন, গুদামজাতকরণ, ব্যবস্থাপনা ও সমন্বয়ের খরচ ও সময় বৃদ্ধি, গ্রাহক সংগ্রহে প্রত্যাশিত সময়ের চেয়ে বেশি সময় এবং ডলারের দাম বাড়ার কথা বলা হয়েছে ।