বিনোদন

ক্যানসারে আক্রান্ত হয়ে মাত্র ৩০ বছর বয়সেই না ফেরার দেশে পাড়ি জমালেন ভারতের অসমীয়া সিনেমার অভিনেতা কিশোর দাস। শনিবার (০১ জুলাই) চেন্নাইয়ের একটি হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের খবর, ব্লাড ক্যানসারের মতো জটিল রোগে আক্রান্ত ছিলেন কিশোর। সম্প্রতি করোনায়ও আক্রান্ত হয়েছিলেন এই অভিনেতা। এরপরই তার শারিরীক পরিস্থিতি অবনতি হয়।

এর আগে আসামে বেশ কিছুদিন চিকিৎসা চলার পর কিশোরকে মুম্বাইয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। এরপর তাকে চেন্নাইয়ে স্থানান্তরিত করা হয়। শনিবার চেন্নাইয়ের হাসপাতালে জীবনযুদ্ধে হেরে গেলেন তিনি। তার মৃত্যুর খবরে শোকস্তব্ধ আসামের শোবিজ অঙ্গন।

ইঞ্জিনিয়ারিং নিয়ে পড়াশোনা করা কিশোরের অভিনয়ই ছিল প্রথম ভালোবাসা। অল্প বয়সেই অসমিয়া সিনেমা ইন্ডাস্ট্রিতে পাকা জায়গা করে নিয়েছিলেন তিনি। ‘বৃন্দাবন’, ‘প্রেম বন্ধকি’, ‘দাদা তুমি দুষ্টু বড়’সহ একাধিক সিনেমায় অভিনয় করেছেন তিনি।

এছাড়াও ৩০০ টিরও বেশি মিউজিক ভিডিওতে দেখা গেছে তাকে। টেলিভিশনের পর্দাতেও কাজ করেছেন কিশোর। তার অভিনীত উল্লেখযোগ্য সিরিয়ালের মধ্যে রয়েছে ‘বিধাতা ও বন্ধু’।

বিনোদন

বন্যার্তদের পাশে দাঁড়ালেন টেলিভিশন নাটকের অভিনেতা-অভিনেত্রীদের সংগঠন অভিনয়শিল্পী সংঘ বাংলাদেশ। বৃহস্পতিবার (৩০ জুন) নেত্রকোনা জেলার মোহনগঞ্জের রাজাপুর ও ঝিমটি গ্রামের মানুষের মধ্যে খাবার ও জরুরি ওষুধ পৌঁছে দিয়েছে সংগঠনটি।

সেখানে উপস্থিত ছিলেন অভিনয়শিল্পী সংঘের সভাপতি আহসান হাবিব নাসিম, সাধারণ সম্পাদক রওনক হাসানসহ কার্যকরী পরিষদের ঊর্মিলা শ্রাবন্তী কর, মম, মিশু সাব্বির, সুজাত শিমুল, শেখ মেরাজুল ইসলাম, তারভীর মাসুদ প্রমুখ।

এ বিষয়ে রওনক হাসান বলেন, বন্যাকবলিত এই জনগোষ্ঠী কী অবর্ণনীয় কষ্টের মাঝে দিন পার করছেন না দেখলে বিশ্বাস করা বা অনুধাবন করা যাবে না। কেনো যেনো মনে হচ্ছে নিজ চোখে দেখে আসলে আমাদের নিজেদের ও বোধের, ভাবনার জগতে এক বিশাল ইতিবাচক পরিবর্তন আসতে পারে।

আবারো বন্যার্তদের পাশে দাঁড়াতে চান জানিয়ে এই অভিনেতা বলেন, আমরা আবার যেতে চাই। সবাই যার যার জায়গা থেকে যতটুকু সামর্থ্য আছে তা নিয়ে বন্যাকবলিত মানুষের পাশে এসে দাঁড়ান। আপনার আমার একটু একটু সহায়তাই সমষ্টিগতভাবে তাদের এই বিপদ মোকাবেলায় সহায়তা করবে।

বিনোদন

স্বপ্নের পদ্মা সেতু প্রকল্প বাস্তবায়ন করায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানিয়েছে সম্মিলিত চলচ্চিত্র পরিষদ। বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন করপোরেশনে (বিএফডিসি) আনন্দ র‌্যালি করেছে সংগঠনটি।

সোমবার (২৭ জুন) দুপুর ১টার দিকে এফডিসির প্রযোজক সমিতির সামনে থেকে র‌্যালিটি শুরু হয়ে এফডিসি সংলগ্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে।

এই আনন্দ র‌্যালিতে অংশ নেন চিত্রনায়ক আলমগীর, রিয়াজ, ফেরদৌস, চিত্রনায়িকা নিপুন আক্তার, পরিচালক সোহানুর রহমান সোহান, চলচ্চিত্রকার কাজী হায়াতসহ চলচ্চিত্রের বিভিন্ন অঙ্গনের কলাকুশলীরা।

সে সময় সম্মিলিত চলচ্চিত্র পরিষদের সভাপতি চিত্রনায়ক আলমগীর বলেন, ‘পদ্মা সেতু আমাদের নিজেদের অর্থায়নের সেতু। এই সেতু আমাদের অহংকার। আমরা এই অহংকার অর্জন করেছি আমাদের প্রিয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্য। তার কাছে আমরা কৃতজ্ঞ। ‘

র‌্যালি শেষে চিত্রনায়িকা নিপুণ বলেন, ‘পদ্মা সেতু কোটি মানুষের একটি স্বপ্নের বাস্তবায়ন। সেজন্য আমরা চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি ও সম্মিলিত চলচ্চিত্র পরিষদের পক্ষ থেকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি। ’

চিত্রনায়ক রিয়াজ বলেন, ‘দেশি-বিদেশি অসখ্য ষড়যন্ত্র কাটিয়ে আমাদের পদ্মা সেতু উদ্বোধন হয়েছে। এপার-ওপারের মধ্যে সংযোগ তৈরি হয়েছে। এজন্য আমি চলচ্চিত্রবাসীর পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি। ’

শনিবার (২৫ জুন) পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী ফলক ও বঙ্গবন্ধুর ম্যূরাল-১ উন্মোচনের মধ্য দিয়ে পদ্মা সেতুর উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পরদিন সকাল ৬টায় জনসাধারণের জন্য সেতু খুলে দেওয়া হয়।

বিনোদন

ছোট পর্দার জনপ্রিয় অভিনেতা আফরান নিশোর অতিথি হলেন বড় পর্দার তারকা দম্পতি পরীমনি ও শরীফুল রাজ। বাংলাদেশ টেলিভিশনের (বিটিভি) জনপ্রিয় ঈদের ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান ‘আনন্দ মেলা’ দেখা যাবে তাদের।

প্রথমবারের মতো আফরান নিশোকে ‘আনন্দ মেলা’র উপস্থাপক হিসেবে পাওয়া যাবে। অনুষ্ঠানটিতে এই তারকা তার অভিনীত বিভিন্ন নাটকের জনপ্রিয় চার-পাঁচটি চরিত্রে ধরা দেবেন। বিশেষ একটি পর্বে নিশোর সঙ্গে আড্ডায় অংশ নেবেন চিত্রনায়িকা পরীমনি ও তার স্বামী চিত্রনায়ক শরীফুল রাজ।

‘আনন্দ মেলা’র পরিকল্পনা করেছেন জগদীশ এষ। লিটু সাখাওয়াতের গ্রন্থনায় প্রযোজনা করেছেন আফরোজা সুলতানা ও হাসান রিয়াদ।

অনুষ্ঠানটি নিয়ে প্রযোজকদ্বয় জানান, শুধু উপস্থাপনাতেই নয়, পুরো ‘আনন্দ মেলা’ জুড়ে থাকছে বিভিন্ন চমক। এবার একটি থিম সং তৈরি করা হয়েছে। যেখানে কণ্ঠ দিয়েছেন বেলাল খান ও লিজা। থাকছে ঢাকা ব্যান্ডের মাকসুদের পরিবেশনা।

এছাড়াও রয়েছে নিশিতা বড়ুয়া, সাব্বির, লিজা ও রাজীবের কণ্ঠে একটি মৌলিক গান। সিনেমার গানের সঙ্গে নাচবেন চিত্রনায়িকা অপু বিশ্বাস ও চিত্রনায়ক সাইমন। থাকছে চিত্রনায়িকা নুসরাত ফারিয়ার নাচ।

চলচ্চিত্র অভিনেতা ইলিয়াস কাঞ্চন হাজির হবেন তার সিনেমার নায়িকা অঞ্জনাকে নিয়ে।

সমসাময়িক বিষয় তিনটি নাটিকা এবং ‘মীরাক্কেল’খ্যাত কৌতুক অভিনেতাদের নিয়ে অন্যরকম আড্ডা।

জানা গেছে, বিটিভির নিজস্ব স্টুডিওতে সম্প্রতি আনন্দ মেলার শুটিং সম্পন্ন হয়েছে। ঈদুল আযহা উপলক্ষে ঈদের দিন রাত দশটার ইংরেজি সংবাদের পর ‘আনন্দ মেলা’ বিটিভিতে প্রচার হবে।

বিনোদন

চিত্রনায়ক জায়েদ খানকে ঘিরে মৌসুমীর সঙ্গে দূরত্ব বেড়েছিল ওমর সানীর। দেড় বছর ধরেই নাকি এই তারকা দম্পতির সম্পর্কে টানাপড়েন চলছিল।

জায়েদ খানের বিরুদ্ধে ওমর সানীর বিস্তর অভিযোগ থাকলেও একই ছাদের তলায় থাকা মৌসুমীর বক্তব্য একেবারে বিপরীত।

জায়েদ খুব ভালো ছেলে এবং তিনি কখনো তাকে বিরক্ত করেননি বলে দাবি ঢাকাই সিনেমার এ নায়িকার।

এমন পরিস্থিতিতে সানী-মৌসুমীর ২৭ বছরের সংসার ভেঙে যাচ্ছে কিনা সেই শঙ্কা জাগে তার ভক্ত-শুভানুধ্যায়ীদের মধ্যে।

তবে এসব বিতর্ক ও আলোচনা ভুলে আবারও এক হলেন সানী-মৌসুমী। জায়েদ ইস্যুতে তাদের বিচ্ছেদের যে গুঞ্জন উঠেছিল তার সমাপ্তি ঘটছে।
নায়ক ওমর সানীর ফেসবুক পোস্টে এমন ভালো লাগার খবব পাওয়া গেছে।

বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১২টার দিকে ফেসবুকে একটি ছবি পোস্ট করেন সানী। সেখানে এক টেবিলে বসে সপরিবারে খাবার খেতে দেখা গেছে ওমর সানীকে। মৌসুমীর মুখোমুখি বসে খাবার খেতে দেখা যায় সানীকে।

ছবির ক্যাপশনেও সব মিটে যাওয়া ইঙ্গিত দিলেন সানী। লিখলেন— ‘সবাই ভালো থাকবেন, দোয়া করবেন আমাদের জন্য।’

ছবিটি পোস্ট হতেই ভাইরাল হয়ে যায়। হওয়ারই কথা। সব ভুলে যেন এ তারকা দম্পতির বন্ধন আবার আগের মতো দৃঢ়তা পায় সেই দোয়া করছিলেন চলচ্চিত্রের মানুষেরা। আবারও এক হয়ে যাওয়ায় সানী-মৌসুমীর ভক্ত-অনুরাগীরা তাদের অভিনন্দনে ভাসাচ্ছেন রাত থেকেই।

পোস্টের ৯ ঘণ্টার মধ্যে দুই হাজার ৬০০-এর বেশি মন্তব্য জমা পড়েছে, যার বেশিরভাগই অভিনন্দন ও সানী-মৌসুমীর জন্য দোয়া-কামনা।

প্রসঙ্গত, গত ১০ জুন অভিনেতা ডিপজলের ছেলের বিয়েপরবর্তী অনুষ্ঠানে জায়েদ খানকে চড় মারেন ওমর সানী। জায়েদের বিরুদ্ধে পিস্তল ঠেকিয়ে গুলি করার হুমকির অভিযোগ তোলেন সানী। এ নিয়ে শিল্পী সমিতিতে অভিযোগও করেন তিনি। ওই অভিযোগে গুলি করার হুমকি, ওমর সানীর স্ত্রী মৌসুমীকে নানাভাবে হয়রানির বিষয়ও তুলে ধরেন।

তবে অভিযোগের বিষয় পুরোটা অস্বীকার করে জায়েদ বলেন, এ খবর মিথ্যা ও বানোয়াট।

এর পর দিনই সংবাদমাধ্যমে অডিওবার্তা দেন মৌসুমী। তাতে জায়েদ খানের কোনো দোষ নেই বলে উল্লেখ করেন নায়িকা।

বিনোদন

বলিউডের জনপ্রিয় গায়ক কে কে’র লাশের ময়নাতদন্তে সন্দেহজনক কিছু পাননি চিকিৎসকরা।

ময়নাতদন্তের পর প্রাথমিকভাবে চিকিৎসকরা এই তথ্য জানিয়েছেন বুধবার রাতে পুলিশকে উদ্ধৃত করে টাইমস অব ইন্ডিয়ার এক প্রতিবেদনে বলা হয়।

তবে ময়নাতদন্তের পূর্ণাঙ্গ প্রতিবেদন দিতে আরও সময় নেবেন চিকিৎসকরা।

মঙ্গলবার রাতে কলকাতায় এক কনসার্ট থেকে বেরিয়ে আসার পরপরই অসুস্থ হয়ে মারা যাওয়া কে কে’র মৃত্যু নিয়ে নানা ধরনের আলোচনার ঝড় বইছে ভারতে।

ওই অনুষ্ঠানের পরিবেশে কে কে অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন। ৫৪ বছর বয়সী এই সঙ্গীত তারকাকে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দেওয়া হয় বলেও অভিযোগ ওঠে।

সেই সঙ্গে কে কে’র কপাল ও থুতনিতে আঘাতের চিহ্ন দেখে নানা সন্দেহও তৈরি হয়।

যে কারণে এই ঘটনায় বুধবার সকালে একটি অপমৃত্যুর মামলা করে কলকাতা ‍পুলিশ। তদন্ত করতে কলকাতা পুলিশের ডিসি (সেন্ট্রাল) রূপেশ কুমার এবং জয়েন্ট সিপি (ক্রাইম) মুরলিধর শর্মা হোটেলে যান বলে আনন্দবাজার পত্রিকা জানিয়েছে।

সংবাদপত্রটি জানায়, হোটেলে কে কে’র ঘর থেকে তার ব্যবহৃত তোয়ালে সংগ্রহ করেন পুলিশকর্তারা।

কে কে’র মৃত্যুর প্রায় ২৪ ঘণ্টা পর প্রকাশ্যে এসেছে একটি সিসিটিভির ভিডিও। তাতে দেখা যাচ্ছে, হোটেলের লবিতে হেঁটে যাচ্ছেন তিনি।

লিফ্‌ট থেকে নেমে তিনি ওই লবি দিয়ে হেঁটেই কক্ষে পৌঁছান তিনি। এই ভিডিওতে তাকে স্বাভাবিকই দেখাচ্ছিল। তার পরনে ছিল অনুষ্ঠানেই পোশাক, গলায় একটি সাদা তোয়ালে ছিল।

এই তোয়ালে দিয়েই অনুষ্ঠানে বার বার ঘাম মুছতে দেখা গিয়েছিল কে কেকে। সেই তোয়ালেই পুলিশ সংগ্রহ করেছে।

ভিডিওতে কে কে’র পাশে দেখা যাওয়া তার ম্যানেজার হিতেশ ভাট বলেন, হোটেলে নিজের কক্ষে ঢুকেই সোফায় বসতে গিয়ে পড়ে যান কে কে। তখন টেবিলের কোনায় তার মাথা ঠুকে কেটে যায়।

কে কে অচেতন হয়ে পড়লে তাকে দ্রুত হাসপাতালে নেওয়া হলেও বাঁচানো হয়নি।

বিনোদন

চিত্রনায়িকা দিলারা হানিফ পূর্ণিমা ঈদের পর এখনো নতুন কোনো সিনেমার শুটিং শুরু করেননি। তবে সামাজিক সাংস্কৃতিক আয়োজনে নিয়মিত হাজির হচ্ছেন। উপস্থাপনার কাজেও দেখা যাচ্ছে মাঝে মধ্যে। এসব বিষয় নিয়েই আজকের ‘হ্যালো…’ বিভাগে কথা বলেছেন তিনি।

* এখন কী নিয়ে ব্যস্ত আছেন?

** রাজধানীর নিজ বাসাতেই অবস্থান করছি। শুটিং শুরু করিনি এখনো। বেশ কিছু কাজের প্রস্তাব আছে। সেগুলো শুরু করার বিষয়টি নিয়ে পরিকল্পনা সাজাচ্ছি।

* ঈদের পর বিনোদন অঙ্গনের অনেকেই কাজ শুরু করেছেন। আপনার বিলম্ব হচ্ছে কেন?

** আসলে আমি বেশি কাজ করি না। মানসম্মত কাজের সঙ্গে থাকার চেষ্টা করি। কাজের সংখ্যা বাড়িয়ে তো লাভ নেই। গত কয়েক বছর ধরেই কিন্তু আমি এ পরিকল্পনা অনুসরণ করে অগ্রসর হচ্ছি। সফলতা ব্যর্থতার হিসাব করবেন দর্শক ও সংশ্লিষ্টরা।

* এভাবে যদি কম কাজ করেন তাহলে তো ভক্ত ও দর্শকরা বঞ্চিত হবেন আপনার অভিনয়শৈলী দেখার জায়গা থেকে?

** আমাকে যারা ভালোবাসেন কিংবা আমার অভিনয় পছন্দ করেন তারা আমি কাজ না করলেও সব সময়ই আমার পাশে থাকবেন। এটা বিগত সময়ের অভিজ্ঞতা থেকে বলতে পারি। আমি অল্প বয়সে মিডিয়ায় কাজ শুরু করলেও আমার অভিনয় ক্যারিয়ারের প্রথম থেকেই দর্শকের কাছ থেকে অভাবনীয় সাড়া পাচ্ছি। আমি মনে করছি এটিই আমার জীবনের সেরা প্রাপ্তি।

* অনেকদিন ধরেই আপনাকে নাটকে অভিনয় করতে দেখা যায় না। এর কারণ কী?

** বিশেষ কোনো কারণ নেই। আমার পরিকল্পনার সঙ্গে না মিললে তো আর অভিনয় করতে পারি না। যদি পছন্দ অনুযায়ী কাজ না পাই তাহলে নাটকেও সহসাই আমাকে দেখা যাবে না।

* আপনার অভিনীত ‘গাঙচিল’ সিনেমাটির কাজের অগ্রগতি কী?

** নঈম ইমতিয়াজ নেয়ামুলের পরিচালনায় এ সিনেমার প্রায় সব কাজই শেষ। ঢাকা এবং নোয়াখালীর মনোরম কিছু জায়গায় এটির শুটিং হয়েছে। এ সিনেমাটিতে অভিনয় করে তৃপ্তি পেয়েছি।

* কিছুদিন আগে আপনার মাকে ‘মা পদক’ দিয়েছে একটি প্রতিষ্ঠান। মায়ের এ প্রাপ্তি নিয়ে আপনার অনুভূতি কী?

** আমার জন্যই আমার মা পদক পেয়েছেন, এটি একজন সন্তান হিসাবে আমার খুবই আনন্দের বিষয়। অনুষ্ঠানটির উদ্যোক্তা সাংবাদিক অভি মঈনুদ্দীনকে এ জন্য আন্তরিক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা। আমি মায়ের সঙ্গে সেই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলাম। মাও অনেক খুশি হয়েছেন।

বিনোদন

ভালোবাসা আর এক ‘হৃদয়ে গোপন’ গল্পের সিনেমা ‘পাপ পুণ্য’। কিছু দুর্বলতার পরও সিনেমা দেখে বাইরে আসার পর অনেক ভাবনা ও দীর্ঘশ্বাসের নাম পাপ পুণ্য।

মানুষ যখন অন্তর্জ্বালায় ভোগে, সেই বেদনা সে ছাড়া অন্য কেউ স্পর্শ করতে পারে না। তাই ছবি দেখে নির্দ্বিধায় মনে হবে বেদনার সব কথা মানুষ বলে না! মনে হবে মানুষ চলে যায়, কিন্তু তার গল্প বেঁচে থাকে। মনে হতে পারে পরিচালক সিনেমার সব গল্প খোলাসা করে দিতে চাননি। মনে হতে পারে সিনেমার নাম পাপ পুণ্য তাহলে কেন?

গিয়াস উদ্দীন সেলিমের চতুর্থ (মনপুরা, স্বপ্নজাল ও গুণিন) সিনেমা পাপ পুণ্য মুক্তি পেয়েছে ২০ মে।

চঞ্চল চৌধুরী এলাকার চেয়ারম্যান। কোনো রকম কপটতা, চাতুরি বা ছলনা নেই তার। সে চায় প্রকৃতভাবে জনগণের সেবা করতে। এমপি মামুনুর রশীদের ডান হাত সে। বাম হাত গাওসুল আলম শাওন। শাওনের এক আত্মীয় মনির খান শিমুল গ্রামের এক মেয়েকে ধর্ষণ করলে চঞ্চল ধর্ষককে শাস্তি দিতে চায়। শাওনের অনুগত পুলিশের সাব ইন্সপেক্টর ফজলুর রহমান বাবু আইন নিজের হাতে তুলে না নেওয়ার দাবি করে ধর্ষককে বাঁচাতে চায়। চঞ্চল চৌধুরীর কারণে পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করলেও শাওনের লোকরা কোপাতে আসে চঞ্চলকে। চঞ্চলের বডিগার্ড কাম ‘ভাইস্তা’ (সারা সিনেমায় চঞ্চলকে কাকা বলেই ডাকে!) সিয়াম পিস্তল বের করে গুলি ছুড়লে শাওনের লোকরা পালিয়ে যায়। সৎ ও পুণ্যবান চেয়ারম্যান চঞ্চল চৌধুরীর পুণ্য কি এতে খোয়া যায় একটুও?

যদিও বাউল রতনের জমি যা সরকার আয়ত্তে নেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু করলে এবং শাওন সেটা কেড়ে নিতে চাইলেও চঞ্চল রতনের পক্ষে দাঁড়ায়। চঞ্চল আর শাওনের দ্বন্দ্ব আরও বাড়ে, এমপি মামুনুর রশীদও এই দ্বন্দ্ব মেটাতে পারেন না।

অন্যদিকে ‘ভাইস্তা’ সিয়াম (সিনেমায় নাম আল আমিন) ভালোবাসে চঞ্চল চৌধুরীর মেয়ে শাহনাজ সুমী ওরফে সাথীকে। এই প্রেম টের পায় সিয়ামের মা আফসানা মিমি। মিমি চঞ্চলের বাসায় কাজ করেন। তিনি ছেলেকে বিদেশে পাঠিয়ে দিতে চঞ্চলের স্ত্রী নাজনীন চুমকির কাছে অনুরোধ করেন। চঞ্চল চৌধুরী তাতে রাজি হন না। কিন্তু সিয়াম আর সুমীর প্রেমে আরও বেশি জোয়ার এলে সিয়ামের মা চঞ্চলের স্ত্রীকে জানিয়ে দেন। নাজনীন চুমকি চঞ্চল চৌধুরীকে জানালে তার ভাবনার জগতে পরিবর্তন আসে। সে সিয়ামকে বিদেশ পাঠাতে ঢাকা নিয়ে আসে। ট্রেনে করে ফেরার পথে চঞ্চল জড়িয়ে যায় রতন হত্যা মামলায়।

চঞ্চল জেলে যাওয়ার পর ছবির গল্পের নাটকীয়তা আরও বাড়ে। জানা যায় বোমা ফাটানো এক তথ্য। পত্রিকায় আসে সিয়ামের মৃত্যুর খবর। একা একা সিয়ামের মা মিমি জেলখানায় দেখা করতে যায় চঞ্চল চৌধুরীর সাথে। সে সিয়ামের মৃত্যুর খবর জানিয়ে বলে সিয়াম চঞ্চল চৌধুরীর ছেলে! চঞ্চল চৌধুরী চলে যায় এক ঘোর ও অন্তর্জ্বালার জগতে। সে জেলখানায় তার স্ত্রী ও কন্যার সাথে দেখা করতে চায় না। পরে সে দেখা করতে চায় সিয়ামের মা আফসানা মিমির সাথে। সাজানো বিচারে চঞ্চলের ফাঁসি হয়, কিন্তু জানা যায় বিদেশে পাঠানোর আগেই চঞ্চল সিয়ামকে হত্যা করেছে!

এই সিনেমা দেখলে কিছু প্রশ্ন উঁকি দিতে পারে মনে। দেখে জানা যায় না কে বা কারা কীভাবে হত্যা করেছে বাউল রতনকে, অথচ এই হত্যা মামলায় চঞ্চলের ফাঁসি কার্যকর করা হয়! ফেরার পথে ট্রেনে দুজন অচেনা লোক একটা ট্রাংক রেখে গেলে চঞ্চল সেটা নিজ দায়িত্বে বগিতে তোলে। একজন চেয়ারম্যান যার শত্রু আছে তার একা একা ফেরাটা কি স্বাভাবিক? কীভাবে সে অচেনা লোকের ট্রাংক নিজ দায়িত্বে নেয়? আবার সিয়ামকে হোটেলে খুন করে চঞ্চল কীভাবে তাকে ব্যাগে ভরে নদীতে ফেলে দিল? সিয়ামের শরীর কি ব্যাগে ঢোকানো সম্ভব ছিল? নাকি টুকরো টুকরো করে তার দেহ ব্যাগে ঢোকানো হয়েছিল? একা একা সেটা সম্ভব? ফাঁসির আসামিকে যম টুপি কখন পরানো হয়? ফাঁসির মঞ্চে নাকি কয়েদী যে রুমে থাকে সেখান থেকে পরিয়ে তাকে মঞ্চে নেওয়া হয়? জেলে কয়েদীদের নির্দিষ্ট পোশাক থাকে, জেলে চঞ্চল চৌধুরীকে কী সবসময কয়েদীর পোশাকে দেখা গেছে? ফাঁসির রায় দেওয়ার সময় বিচারক সাধারণত স্বাক্ষরের পর কলমের মুখটা ভাঙেন যেন এই কলম দিয়ে আর কোনো ফাঁসির রায় লিখতে না হয়- যা এই সিনেমায় নেই। নেই চঞ্চলের জীবনের সেই গোপন গল্পের পরবর্তী ধাপ যেখানে আফসানা মিমি, নাজনীন চুমকি আর শাহনাজ সুমির মনস্তাত্ত্বিক দ্বন্দ্বটা জমে উঠতে পারতো!

তারপরও এই সিনেমা গিয়াস উদ্দীন সেলিমের আগেরগুলোর চেয়ে ব্যতিক্রম। সিনেমাজুড়ে মনস্তাত্ত্বিক দ্বন্দ্বের সুন্দর অভিব্যক্তি ছিল চঞ্চলের। চঞ্চল চৌধুরী ছাড়াও মামুনুর রশীদ, ফারজানা চুমকি, শাহনাজ সুমি, গাউসুল আলম শাওন সুন্দর অভিনয় করেছেন। সিয়ামের অভিনয় মনে রাখার মতো। মৃধা বনাম মৃধার যে সিয়াম, শান সিনেমার সিয়াম তার চেয়ে ঢের আলাদা। শান সিনেমার যে সিয়াম তার থেকে অনেক বাস্তব পাপ পুণ্য’র সিয়াম। ভিন্ন প্রেক্ষিতে দিন রাতের আলোর সঙ্গে আলোর ব্যবহার দেখে মনে হতে পারে বাড়তি আলোক সংযোজন না করেই এই ছবির শুটিং করা হয়েছে, যেটি প্রসংসা পেতেই পারে। গিয়াস উদ্দীন সেলিমের সিনেমায় প্রকৃতি দেখানোর আয়োজন থাকে, যা এতেও ভরপুর আছে। গিয়াসউদ্দীন সেলিমের সিনেমায় মনকাড়া কিছু গান থাকবে এটা মনপুরা থেকেই হয়ত দর্শক প্রত্যাশা। এই সিনেমার গানগুলোও জনপ্রিয় হতে পারে।

সিনেমার সংগীত পরিচালনা করেছেন ইমন চৌধুরী। ইমন নিজে আতিয়া আনিসার সাথে একটি গানে কণ্ঠ দিয়েছেন যার শিরোনাম-‘তোর সাথে নামলামরে পথে’। গানের কথা লিখেছেন ইশতিয়াক আহমেদ । ছবিতে কবিয়াল বিজয় সরকারের লেখা, সুর করা ও একদা তার কণ্ঠে জনপ্রিয় হওয়া ‘চোখ গেল পাখি কেন তুই ডাকিসরে’ গানটি ছবির জন্য বগা তালেবকে দিয়ে গাওয়ানো হয়েছে। বিজয় সরকারের সুরেলা দীর্ঘশ্বাস তালেবের গানে কতটা আছে সেটা অনুল্লেখ থাক। দর্শক এবং শ্রোতাদের উপরেই তোলা থাক এই গানের বিচারের ভার!

বাংলা সিনেমার এই ধারা অব্যাহত থাকুক। গিয়াসউদ্দীন সেলিমের পাপ পুণ্য সিনেমার জন্য শুভকামনা রইলো।

বিনোদন

পরপর দুই অভিনেত্রীর মৃত্যুর পর কলকাতার আরেক অভিনেত্রী, মডেল মঞ্জুষা নিয়োগীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

মায়ের দাবি, ঘনিষ্ট বান্ধবী বিদিশার মৃত্যুতে তীব্র হতাশা আর অবসাদে ভুগছিলেন মঞ্জুষা; এর জেরেই তিনি আত্মহননের পথ বেছে নিয়েছেন।

সদ্য প্রয়াত আরেক অভিনেত্রী পল্লবী দের সঙ্গেও মঞ্জুষার যোগাযোগ ছিল।

পুলিশ এ ঘটনায় কোনো ‘সুইসাইড নোট’ পায়নি। তবে ‘অস্বাভাবিক’ মৃত্যু হিসেবেই তদন্ত শুরু করেছে তারা।

শুক্রবার আনন্দবাজারের প্রতিবেদনে বলা হয়, তিন-চার দিন আগে কলকাতার পাটুলিতে বাবার বাড়িতে আসেন মঞ্জুষা, ওই বাড়ি থেকেই তার ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

কয়েক দিনের মধ্যে কলকাতায় বিনোদন জগতে এ নিয়ে তৃতীয় ‘অস্বাভাবিক’ মৃত্যুর ঘটনা ঘটল। গত ১৫ মে দক্ষিণ কলকাতার গরফা এলাকায় নিজের ফ্ল্যাট থেকে অভিনেত্রীর পল্লবী দের ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার হয়েছিল।

বুধবার অভিনেত্রী ও মডেল বিদিশা দে মজুমদারের ঝুলন্ত দেহ পাওয়া যায় নাগেরবাজারে তার ফ্ল্যাটে। তার বাড়ি উত্তর ২৪ পরগণার কাঁকিয়ানাড়ায় হলেও কলকাতার দমদম এলাকায় একটি ভাড়া ফ্ল্যাটে থাকতেন তিনি।

শুক্রবার এল মঞ্জুষার মৃত্যুর খবর। সর্বশেষ একটি টেলিভিশনের ধারাবাহিকে অভিনয় করছিলেন তিনি, পাশাপাশি থিয়েটারেও কাজ করছিলেন।

আনন্দবাজার লিখেছে, বৃহস্পতিবারও ফটোশুটে অংশ নেন এই ফ্যাশন মডেল। ওই দিন মঞ্জুষাকে বাবার বাড়ি থেকে নিতে তার স্বামী এসেছিলেন, কিন্তু মায়ের অনুরোধ ছিল মেয়ে যেন আরও কয়েকদিন থেকে যায়।

পুলিশের বরাত দিয়ে পত্রিকাটি জানিয়েছেন, ফরেনসিক পরীক্ষার জন্য মঞ্জুষার মরদেহ হাসপাতালে পাঠান হয়েছে। বিদিশার মৃত্যুর সঙ্গে এর কোনও যোগসূত্র আছে কি না, তা খতিয়ে দেখছে পুলিশ।

বিনোদন

তরুণ নির্মাতা নুহাশ হুমায়ূনের স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র ‘মশারি’ আটলান্টা চলচ্চিত্র উৎসবে পুরস্কৃত হয়েছে।