আন্তর্জাতিক

বাংলাদেশে প্রকৃত, স্বচ্ছ এবং শান্তিপূর্ণ নির্বাচন দেখতে চায় যুক্তরাষ্ট্র। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন নিয়ে যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তার বাস্তবায়ন দেখতে চায় তারা।

ওয়াশিংটনের ফরেন প্রেস সেন্টারে শুক্রবার এক বিশেষ ব্রিফিংয়ে মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরের মুখপাত্র নেড প্রাইস এসব কথা বলেন।

এক সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও বাংলাদেশ সরকার অবাধ এবং সুষ্ঠু নির্বাচন চান। আমরা এই চাওয়াকে স্বাগত জানাই। তবে এসব কথা ও কাজের মধ্যে মিল আছে কিনা- তা পর্যবেক্ষণ করবে যুক্তরাষ্ট্র।

নেড প্রাইস আরও বলেন, একটি নির্বাচন যেভাবে হওয়া প্রয়োজন, ঠিক সেভাবেই আয়োজন করতে বাংলাদেশ সরকার কিভাবে কাজ করবে তা বুঝতে আমাদের পর্যবেক্ষণ অব্যাহত থাকবে। এই নির্বাচন হতে হবে প্রকৃত, স্বচ্ছ এবং শান্তিপূর্ণ। যদিও নির্বাচনের এখনো আরও অনেক দিন বাকি। কিন্তু একটি প্রকৃত নির্বাচনি কার্যক্রম সফল করতে বাংলাদেশের গঠনমূলক উদ্যোগকে আমরা সমর্থন করছি।

মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরের এই মুখপাত্র জানান, যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশে বিরোধী রাজনৈতিক নেতা ও মুক্তমত প্রকাশকারীদের ওপর সহিংসতা হয়রানি এবং ভীতি প্রদর্শনের বিষয়গুলো লক্ষ্য করছে ও সরকারের কাছে নিজের উদ্বেগের কথা তুলে ধরেছে।

পাশাপাশি বাংলাদেশে নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত পিটার হাসেরও ভূয়সী প্রশংসা করেন নেড প্রাইস। তিনি বলেন, বাংলাদেশে আমাদের রাষ্ট্রদূত অসাধারণ কাজ করছেন। তিনি কেবল যুক্তরাষ্ট্রকেই প্রতিনিধিত্ব করছেন না বরং আমাদের পররাষ্ট্রনীতির মূল ভিত্তি গণতন্ত্র ও মানবাধিকার সমুন্নত রাখতে নিরলস ভূমিকা রাখছেন। ভবিষ্যতেও তার এই ভূমিকা অব্যাহত থাকবে।

আন্তর্জাতিক

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ প্রবৃদ্ধি ও উন্নয়নে রেকর্ড করেছে। এমনকি ক্রমবর্ধমান বৈশ্বিক অনিশ্চয়তার মধ্যেও দেশটি অনেক উন্নয়ন করছে।

অনলাইন গণমাধ্যম এশিয়ান লাইট ইন্টারন্যাশনালের এক নিবন্ধে বলা হয়েছে, বিপুল জনশক্তি, শক্তিশালী তৈরি পোশাক খাত (আরএমজি) ও এর রপ্তানি, স্থিতিশীল রেমিট্যান্স প্রবাহ এবং স্থিতিশীল সামষ্টিক-অর্থনৈতিক অবস্থা বাংলাদেশের দ্রুত অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিকে এগিয়ে নিয়েছে। মঙ্গলবার ভারতীয় বার্তা সংস্থা এএনআই-এর এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

নিবন্ধে আরও বলা হয়, স্বাধীনতার ৫০ বছর পর দক্ষিণ এশিয়ার সর্বকনিষ্ঠ দেশ বাংলাদেশ এখন শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এ অঞ্চলে শক্তিশালী অর্থনীতির দেশ হয়ে উঠেছে। অল্প সময়ের মধ্যে বাংলাদেশ নিম্নআয় এবং স্বল্পোন্নত দেশ থেকে নিম্ন-মধ্যম আয়ের-উন্নয়নশীল দেশে পরিণত হয়েছে। নতুন নতুন ফ্লাইওভার, সেতু এবং বাণিজ্যিক বিভিন্ন স্থাপনা নির্মাণের মাধ্যমে ঢাকায় ‘উল্লেখযোগ্য রূপান্তর’ ঘটেছে। বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধি ও উন্নয়নকে আরও এগিয়ে নিতে সরকার রপ্তানিমুখী শিল্প সম্প্রসারণ এবং বিদেশি বিনিয়োগ আকর্ষণের জন্য দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপন করতে ২০১০ সালে অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠা করেছে। বাংলাদেশের অর্থনীতিতে পদ্মা নদীর ওপর ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ রেল-সড়ক সেতু অবদান রাখছে। স্বাধীনতার পর থেকে সেতুটি বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় অবকাঠামো। বিশ্বব্যাপী দ্রুত বর্ধনশীল অর্থনীতির শীর্ষ ১০টির মধ্যেও বাংলাদেশ রয়েছে।

নিবন্ধে বলা হয়, অতীতে বাংলাদেশ কেবলই প্রাকৃতিক দুর্যোগের জন্য আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের খবরে এসেছে। আর এ দেশটিই এখন লাখ লাখ মানুষকে দারিদ্র্যের খপ্পর থেকে বের করে আনা এবং ৬ দশমিক ৬ শতাংশেরও বেশি গড় অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির সাক্ষী হয়েছে। এমনকি মিয়ানমার থেকে ১০ লাখেরও বেশি বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গা আশ্রয় দিয়েছে বাংলাদেশ।

আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) মতে, জিডিপির দিক থেকে বাংলাদেশ এখন বিশ্বের ৪৩তম বৃহত্তম অর্থনীতির দেশ। একই সঙ্গে পিপিপির দিক থেকে বাংলাদেশের অবস্থান ৩২তম। আন্তর্জাতিক পেশাদার পরিষেবা ব্র্যান্ড প্রাইস ওয়াটার হাউস কুপার্স-এর দেওয়া পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, বাংলাদেশ ২০৩০ সালের মধ্যে বিশ্বের ২৮তম বৃহত্তম অর্থনীতির দেশ হবে।

আন্তর্জাতিক

বিদায়ী ২০২২ সালে বিশ্ব অর্থনীতির আকার ১০০ ট্রিলিয়ন ডলার ছাড়িয়ে গেছে। বিশ্ব অর্থনীতির একটা বড় অংশজুড়ে যুক্তরাষ্ট্র, চীন, জাপান, জার্মানি ও ভারত রয়েছে। বিশ্বের মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) অর্ধেকই এই পাঁচ দেশের। এ বৈশ্বিক জিডিপির তালিকায় ৩৫তম স্থানে রয়েছে বাংলাদেশ। আর পাকিস্তানের অবস্থান ৪২তম।

সম্প্রতি কানাডাভিত্তিক গবেষণা সংস্থা ভিজ্যুয়াল ক্যাপিটালিস্টে প্রকাশিত প্রতিবেদনে এ তথ্য তুলে ধরা হয়েছে।

আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) তথ্য-উপাত্তের সাহায্য নিয়ে তৈরি প্রতিবেদনটিতে বলা হয়, গত বছরে বিশ্বে দুটি বড় ঘটনা ঘটেছে। এক. বিশ্ব অর্থনীতির আকার ১০০ ট্রিলিয়ন ডলার ছাড়িয়ে গেছে। দুই. বিশ্বের জনসংখ্যা ৮০০ কোটি পার হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, বিশ্ব অর্থনীতির একটা বড় অংশজুড়ে যুক্তরাষ্ট্র, চীন, জাপান, জার্মানি ও ভারত রয়েছে। বিশ্বের মোট জিডিপির অর্ধেকই পাঁচটি দেশের। গত বছর যুক্তরাজ্যকে টপকে ভারত পঞ্চম স্থান দখল করে নিয়েছে। আরও পাঁচটি দেশকে এর সঙ্গে যুক্ত করা হলে ১০টি দেশের মিলিত জিডিপি হবে বৈশ্বিক জিডিপির ৬৬ শতাংশ। আর বৈশ্বিক জিডিপির ৮৪ ভাগের অংশীদার বিশ্বের ২৫টি দেশ। বিশ্বের বাকি ১৬৭টি দেশের জিডিপির পরিমাণ খুবই কম- মাত্র ১৬ শতাংশ।

এ হিসাবে বৈশ্বিক জিডিপির তালিকা অনুযায়ী বাংলাদেশের অর্থনীতির অবস্থান ৩৫তম। বাংলাদেশের জিডিপির আকার ৪৬০ বিলিয়ন ডলার বা ৪৬ হাজার কোটি ডলার। বাংলাদেশের ঠিক আগেই রয়েছে সংযুক্ত আরব আমিরাত, মিসর ও অস্ট্রিয়ার মতো দেশ। আর ঠিক পরেই আছে মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর ও ভিয়েতনাম। আর পাকিস্তানের অবস্থান ৪২তম। নিম্ন জিডিপির দেশগুলোর বেশিরভাগই ওশেনিয়া অঞ্চলের দ্বীপদেশ।

প্রতিবেদনটিতে সংশ্লিষ্ট দেশগুলোর জিডিপি নিরিখেই হিসাব করা হয়েছে। এতে ১০০ ট্রিলিয়ন ডলারের বিশ্ব অর্থনীতিতে ছোট-বড় সব দেশের জিডিপির হিসাব যুক্ত হয়েছে। এতে কোন দেশের হিস্যা কত সেসব তুলে ধরা হয়েছে।

অর্থনীতির এক ঘোর অনিশ্চয়তা নিয়ে ২০২৩ শুরু হয়েছে। করোনার পর রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ। দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি, মূল্যস্ফীতিতে নাকাল বিভিন্ন দেশের মানুষ। অনেক বিশেষজ্ঞ স্বল্প আকারে মন্দা সৃষ্টি হওয়ার কথা বলছেন। তবে এটা স্বল্প না দীর্ঘস্থায়ী হবে- তা নিয়ে বিতর্ক আছে। এরই মধ্যে আইএমএফ বলেছে, বিশ্বের অন্তত এক-তৃতীয়াংশ দেশ মন্দার কবলে পড়বে।

অনেক বিশেষজ্ঞ বলছেন, অর্থনীতির নিম্নগামী প্রবণতাকে চীন রুখতে পারবে। আর এ পূর্বাভাস ঠিক হলে বিশ্ব জিডিপির হিস্যায় চীনের অংশ আরও বাড়বে।

আন্তর্জাতিক

হাইপারসনিক ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্রে সজ্জিত একটি ফ্রিগেট মোতায়েন করেছে রাশিয়া। অ্যাডমিরাল গোরশকোভ নামে এই যুদ্ধজাহাজ আটলান্টিক ও ভারত মহাসাগরের দিকে তৎপরতা চালাবে।

বুধবার অত্যাধুনিক অস্ত্রে সজ্জিত এ যুদ্ধজাহাজ মোতায়েন উপলক্ষ্যে একটি ভিডিও কনফারেন্সে অংশ নেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ভ্লাদিমির পুতিনের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সে রাশিয়ার প্রতিরক্ষামন্ত্রী সের্গেই শোইগু ও ফ্রিগেটের কমান্ডার ইগোর ক্রোখমল যুক্ত ছিলেন।

যুদ্ধজাহাজটিকে ‘কমব্যাট সার্ভিস’ শুরু করার নির্দেশ দেওয়ার আগে পুতিন বলেন, ‘এই জাহাজে অত্যাধুনিক হাইপারসনিক ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা ‘জিরকন’ রয়েছে। মাতৃভূমির কল্যাণে সেবাদানে নাবিকরা যেন সফল হন, আমি সেই প্রার্থনা করছি।’

পুতিন বলেন, ‘আমরা আমাদের সশস্ত্র বাহিনীর লড়াইয়ের সম্ভাবনা বিকাশের কাজ অব্যাহত রাখবো। এ জাহাজে থাকা জিরকন ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থার ‘সমতুল্য কিছু নেই’।

প্রতিরক্ষামন্ত্রী শোইগু বলেন, এই ফ্রিগেট আটলান্টিক ও ভারত মহাসাগর এবং ভূমধ্যসাগরে কার্যক্রম পরিচালনা করবে। এ জাহাজে যে হাইপারসনিক ক্ষেপণাস্ত্র রয়েছে তা যে কোনো ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষাব্যবস্থা ভেদ করতে সক্ষম এবং হাজার কিলোমিটারের বেশি দূরত্বে গিয়ে আঘাত হানতে পারে।

তিনি বলেন, এর মাধ্যমে জল ও স্থলে শত্রুর ওপর সুনির্দিষ্ট লক্ষ্যবস্তুতে শক্তিশালী আঘাত হানতে পারবে।

আন্তর্জাতিক

বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ জানিয়েছেন, ভারতের ঝাডখণ্ডে নির্মাণাধীন আদানি গ্রুপের বিদ্যুৎ কেন্দ্র থেকে আগামী মার্চ নাগাদ বাংলাদেশ বিদ্যুৎ পাবে।

মঙ্গলবার ঝাড়খণ্ডে আদানি পাওয়ার লিমিটেডের নির্মাণাধীন ১৬০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ কেন্দ্র পরিদর্শন শেষে তিনি একথা জানান বলে মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

একদল সংবাদকর্মী ও বিদ্যুৎ বিভাগের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তাদের নিয়ে নির্মাণাধীন ওই বিদ্যুৎ কেন্দ্র পরিদর্শনে যান প্রতিমন্ত্রী।

নসরুল বলেন, ভারত থেকে বাংলাদেশে বিদ্যুৎ সঞ্চালানের জন্য একটি বিশেষ সঞ্চালন লাইন নির্মাণ করা হয়েছে। মার্চের মাঝামাঝি সময় থেকে বিদ্যুৎ আমদানি করা সম্ভব হবে।

নিরবচ্ছিন্ন সরবরাহের লক্ষ্যে বিদ্যুতের বহুমুখী জোগান নিশ্চিত করতে ২০১৩ সালেই ভারত থেকে আমদানি শুরু করে সরকার।

বর্তমানে পশ্চিমবঙ্গের বহরমপুর থেকে কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা হয়ে দৈনিক ১০০০ মেগাওয়াট এবং ত্রিপুরা রাজ্যের সূর্যমনি থেকে কুমিল্লা হয়ে ১৬০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আসছে।

ভারতের বাংলাদেশ লাগোয়া রাজ্য পশ্চিমবঙ্গের পাশেই ঝাড়খণ্ড রাজ্য। সেখান থেকে বাংলাদেশের চাঁপাইনবাবগঞ্জ ও বগুড়ার সঞ্চালন লাইন হয়ে আসবে আদানির বিদ্যুৎ।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, প্রথম ইউনিট থেকে ৭৫০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ মার্চের মাঝামাঝি পাওয়া যেতে পারে। আগামী গ্রীষ্মের চাহিদা পূরণে আরও বিদ্যুৎ প্রয়োজন। জ্বালানির বিকল্প উৎসও আমরা খুঁজছি। সাশ্রয়ী মূল্যে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহকে অগ্রাধিকার দিয়ে কাজ করছি।

আদানির বিদ্যুৎ কেন্দ্র পরিদর্শনকালে প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে ছিলেন বিদ্যুৎ সচিব মো. হাবিবুর রহমান ও বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রকৌশলী মো. মাহবুবুর রহমান।

২০১৭ সালের ৫ নভেম্বর বিদ্যুৎ বিভাগ ও আদানি পাওয়ারের মধ্যে একটি ক্রয় চুক্তি হয়। চুক্তির আওতায় আদানি ঝাডখণ্ডে এই বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণ করছে।

সেই বিদ্যুৎ দেশে এনে জাতীয় গ্রিডে যোগ করতে বিশেষ সঞ্চালন লাইন নির্মাণ করা হয়েছে। বাংলাদেশ অংশে চাঁপাইনবাবগঞ্জ ও বগুড়ায় দুটি সাবস্টেশন ও অন্যান্য সঞ্চালন স্থাপনা নির্মাণ করছে পাওয়ার গ্রিড কোম্পানি অব বাংলাদেশ-পিজিসিবি।

এখন শীত চলতে থাকায় বাংলাদেশে বিদ্যুতের চাহিদা কিছুটা কমে এসেছে। চলতি জানুয়ারি মাসের তথ্য অনুযায়ী, এখন দিনে ৮ হাজার মেগাওয়াট থেকে ৯ হাজার ৪০০ মেগাওয়াট করে বিদ্যুৎ উৎপাদন করতে হচ্ছে।

তবে গ্রীষ্ম মাসে এই চিত্রটি ভিন্ন থাকে। গত মার্চে দিনে বিদ্যুতের চাহিদা ১২৫০০ মেগাওয়াট থেকে ১৩ হাজার ৫০০ মেগাওয়াটের মধ্যে ছিল।

চাহিদা পূরণের বিদ্যুৎ উৎপাদনের ক্ষমতা দেশে থাকলেও ইউক্রেইন যুদ্ধের কারণে বিশ্বে জ্বালানির উচ্চ মূল্যের কারণে উৎপাদন কমিয়ে দেওয়া হয়।

আন্তর্জাতিক

মুসলমানদের তৃতীয় পবিত্রতম স্থান আল-আকসা মসজিদের গ্র্যান্ড খতিব ও ইমাম শায়খ ইকরামা সাইদ সাবরিকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে গেছে ইসরাইলি গোয়েন্দা বাহিনী মোসাদের সদস্যরা।

সোমবার তাকে তুলে নিয়ে ইসরাইলি গোয়েন্দারা জিজ্ঞাসাবাদ করেছে বলে পরিবারের বরাতে আনাদোলু এজেন্সি জানিয়েছে।

নাম না প্রকাশের শর্তে শেখ একরিমা সাবরির পরিবারের এক সদস্য আনাদোলুকে বলেন, পূর্ব জেরুজালেমের আল-সুহানেহতে অবস্থিত ইমামের বাড়িতে অভিযান চালান ইসরাইলি সেনারা। কোনো কারণ না দেখিয়েই তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তুলে নিয়ে যায় তারা।

তবে আল-আকসার ইমামকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে যাওয়ার ব্যাপারে এখন পর্যন্ত কোনো মন্তব্য করেনি ইসরাইল।

শায়খ ইকরামা সাবরি ইসরাইলি দখলদারদের সমালোচনা করে প্রায়ই বিভিন্ন বক্তব্য দেন। এ কারণে আগেও তাকে একাধিকবার আটক ও জিজ্ঞাসাবাদের মুখোমুখি হতে হয়েছে।

ইসরাইলি কর্তৃপক্ষ শেখ সাবরির বিরুদ্ধে আল-আকসায় কয়েকবার উস্কানির অভিযোগ এনে নির্বাসনের আদেশ দিয়েছিল ইসরাইলি কর্তৃপক্ষ।

১৯৬৭ সালে মধ্যপ্রাচ্যের যুদ্ধে পূর্ব জেরুজালেম অধিগ্রহণ করে ইসরাইলি বাহিনী। সেখানেই আল-আকসা মসজিদ অবস্থিত। তবে এটিকে কখনো আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় স্বীকৃতি দেয়নি।

আন্তর্জাতিক

রাশিয়ায় একটি বৃদ্ধাশ্রমে আগুন লেগে অন্তত ২০ জনের মৃত্যু হয়েছে।

স্থানীয় সময় শনিবার ভোরে সাইবেরিয়ার কেমেরোভা শহরের ওই বাসভবননে আগুন লাগে।

মৃতদের অধিকাংশই ভবনটির বৃদ্ধ বাসিন্দা বলে জানিয়েছেন জরুরি বিভাগের কর্মকর্তারা।

রুশ গণমাধ্যম আরটি জানিয়েছে, ফায়ার সার্ভিস ও জরুরি বিভাগের কর্মীরা মিলে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়। ভবনটির দ্বিতীয় তলার বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

ভবনটি স্থানীয় প্রোটেস্টট্যান্ট গির্জার এক যাজকের মালিকানাধীন বলে জানা গেছে। অনিবন্ধিত এই বাসভবনটি গৃহহীন বৃদ্ধদের আশ্রয়স্থল হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছিল।

জরুরি বিভাগের এক কর্মকর্তা বার্তা সংস্থা ইন্টারফ্যাক্সকে বলেছেন, মৃতদের অধিকাংশই ভবনটির বৃদ্ধ বাসিন্দা। কর্তৃপক্ষের ধারণা, বৈদ্যুতিক গোলযোগ থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে।

আন্তর্জাতিক

শীত পড়তেই চীনে হু হু করে বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। করোনার নতুন ধরন বিএফ.৭ ভয়াবহভাবে বিস্তার ঘটেছে চীনে।

ইতিমধ্যেই করোনা আক্রান্ত হয়ে দেশটিতে অনেক রোগী মারা গেছে। খবর ব্লুমবার্গ এবং দ্য ফিন্যান্সিয়াল টাইমসের।

ডিসেম্বরের প্রথম ২০ দিনে চীনে প্রায় ২৫ কোটি মানুষ মানুষের করোনা আক্রান্ত হবেন! দেশটির শীর্ষ কর্মকর্তরা নাকি এমনটাই ধারণা করেছিলেন।

চীনের স্বাস্থ্য কর্মকর্তরা আগেভাগে অনুমান করেছিলেন ডিসেম্বরের প্রথমে ‘করোনা বিস্ফোরণ’ হতে পারে। আর সেই সংখ্যা নাকি ২৫ কোটি ছাড়াবে। আর সেই কারণেই নাকি সাধারণের প্রতি কড়া হয়েছিল প্রশাসন।

চীনে কত মানুষ আক্রান্ত, তার সঠিক পরিসংখ্যান এখনও প্রকাশ্যে আসেনি। তবে যদি এই পরিসংখ্যান সত্যি হয়, তা হলে সে দেশের প্রায় ১৮ শতাংশ মানুষ এই মুহূর্তে করোনায় আক্রান্ত।

সংবাদ সংস্থা ব্লুমবার্গের প্রতিবেদনে দাবি করা হয়েছে, চীনে নাকি প্রতিদিন কোভিডে আক্রান্ত হচ্ছেন ৩ কোটির বেশি মানুষ। এই তথ্য সত্যি হলে একদিনে কোভিড সংক্রমণের নিরিখে অতীতের সব রেকর্ড ভেঙে দিয়েছে চীন।

দেশটির করোনা পরিস্থিতি আরও খারাপ হতে পারে বলেও আশঙ্কা করা হচ্ছে।

আন্তর্জাতিক

ইউক্রেনে চলমান সামরিক অভিযানকে জনসম্মুখে ‘যুদ্ধ’ বলে অবহিত করেছেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন।

দেশটিতে মস্কোর আক্রমণের ১০ মাসের মাথায় প্রথমবারের মতো এই শব্দ উচ্চারণ করলেন রুশ প্রেসিডেন্ট।

স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার (২২ ডিসেম্বর) যুব নীতির ওপর স্টেট কাউন্সিলের বৈঠকে যোগ দেন পুতিন।

বৈঠক শেষে মস্কোতে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, সামরিক সংঘাত বাড়ানো আমাদের লক্ষ্য। আমাদের লক্ষ্য এই যুদ্ধের অবসান ঘটানো।

এক মার্কিন কর্মকর্তা সিএনএনকে তাদের প্রাথমিক মূল্যায়নে বলেছেন, ‘পুতিনের মন্তব্য ইচ্ছাকৃত ছিল না। সম্ভবত কথায় কথায় বলে ফেলেছেন। তবে, কর্মকর্তারা আগামী দিনে ক্রেমলিন এ বিষয়ে কী কী বলে তা ঘনিষ্ঠভাবে পর্যবেক্ষণ করবেন। ’

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে প্রবেশ করে রাশিয়া। শুরুতে পুতিন তার আক্রমণ বর্ণনা করতে গিয়ে ‘বিশেষ সামরিক অভিযান’ শিরোনাম ব্যবহার করেছিলেন। রুশ আগ্রাসনে দেশটির হাজার হাজার মানুষ নিহত হন। এমনও আছে যেখানে পুরো গ্রাম নিশ্চিহ্ন হয়ে গেছে। ধ্বংস হয়েছে অসংখ্য অবকাঠামো।

আন্তর্জাতিক

অধিকৃত পশ্চিম তীরে ইসরায়েলি বাহিনীর গুলিতে ফিলিস্তিনের ২৩ বছর বয়সী ফুটবলার আহমেদ দারাঘমেহ নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হন আরও পাঁচ জন। কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার পশ্চিম তীরের নাবলুস শহরে ইসরায়েলি বাহিনী ও ফিলিস্তিনিদের মধ্যে সংঘর্ষ চলাকালে এ হতাহতের ঘটনা ঘটে।

প্রতিবেদনে জানা গেছে, ইসরায়েলি বাহিনীল গুলিতে আহমেদ ভোরে মারাত্মক আহত হন। ফিলিস্তিনের শহরের জোসেফের সমাধি নামে পরিচিত একটি জায়গায় অভিযান চালায় ইসরায়েলি বাহিনী। ওই সময় উভয়পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ভিডিওতে গোলাগুলি শব্দ শোনা যায়। আহমেদ দারাঘমেহ তুবাস শহরের বাসিন্দা। তিনি সংঘর্ষ চলাকালীন নিহত হয়েছেন কিনা তা স্পষ্ট করেনি ফিলিস্তিন কর্তৃপক্ষ। স্থানীয় মিডিয়াগুলো জানিয়েছে, নিহত ফিলিস্তিনি আহমেদ পশ্চিম তীরের প্রিমিয়ার লিগের ক্লাব থাকাফি তুলকারেমের হয়ে ফুটবল খেলতেন।

এ ঘটনায় ইসরায়েলি সামরিক বাহিনীর দাবি, নাবলুসে ইসরায়েলি সেনাদের দিকে বিস্ফোরক নিক্ষেপ করেছিল কিছু ফিলিস্তিনিরা। এর জবাবে পাল্টা গুলি চালানো হয়।